YAMAHA R15 V4 ফার্স্ট এক্সপ্রেশন রিভিউ

Yamaha R15 V4 Review

Yamaha R15 V4 পূর্বের ভার্সন থেকে বেশ আপডেটেড, বিশেষ করে এর এলিগেন্ট লুক। R7 থেকে এস্পিরেশন নিয়ে  Yamaha R15 V4 স্টাইলের সাথে নিয়ে এসেছে দারুন সব ফিচার। এটিতে ব্লুটুথ এনাবেল এলসিডি ডিসপ্লেতে আপনি ইয়ামাহা মোটরসাইকেল কানেক্ট অ্যাপ ব্যবহার করে কল, এসএমএস, এমনকি ইমেইল দেখতে পারবেন।  এর হ্যান্ডেল বারে এনেছে পরিবর্তন, ভি থ্রি থেকে  ওয়াইড এবং লো। ককপিট, সুইচগিয়ার বাটন দেখতে বেশ ক্লিন এবং প্রিমিয়াম, ব্যবহৃত প্লাস্টিক কোয়ালিটি ও চমৎকার। 

Engine

Yamaha R15 V4-এ দেওয়া হয়েছে ১৫৫ সিসি সিঙ্গেল-সিলিন্ডার লিকুইড-কুলড ইঞ্জিন। ইঞ্জিনটি ১০,০০০ rpm-এ ১৮.৪ এইচপি পাওয়ার ও ৭৫০০ rpm-এ সর্বাধিক ১৪.২ এনএম টর্ক জেনারেট করতে সক্ষম এবং এখানে রয়েছে ৬-স্পিড গিয়ারবক্স। 

Brake

Yamaha R15 V4-এর ব্রেকিং সিস্টেমে রয়েছে একটি টুইন-পিস্টন কলিপার যুক্ত ২৮২ মিমি ফ্রন্ট ডিস্ক ও একটি সিঙ্গেল-পিস্টন ক্যালিপার সহ ২২০ মিমি রিয়ার ডিস্ক।ডাবল ডিস্ক এবং ডুয়াল চ্যানেল এবিএস এর এই বাইকটির ব্রেকিং এক কোথায় অসাধারণ। 

সাসপেনশন

বাইকটির ফ্রন্টে দেওয়া হয়েছে সোনালি রং-এর প্রিমিয়াম আপ-সাইড ডাউন ফর্ক ও এর পেছনে রয়েছে একটি একটি মনোশক সাসপেনশন।

Body & Color

বাইকটির ওজন ১৪২ কেজি। বাইকটি উচ্চতা 1135 mm মিলিমিটার এবং গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স 170 mm মিলিমিটার। বাইকটির 815 মিলিমিটার সিট হাইটের কারণে কম হাইটের ব্যবহারকারীর জন্য পছন্দ নাও হতে পারে।  এর সামনে 100/80 17 ইঞ্চি এবং পেছনে 140/70-R17 ইঞ্চি রেডিয়াল Tubeless টায়ার। 

Speed & Mileage

১১ লিটার ফুয়েল ট্যাংকের বাইকটিতে মাইলেজ পাওয়া যেতে পারে ৪০ কিলোমিটার এবং বিভিন্ন সোর্স অনুযায়ী এটির ম্যাক্স স্পিড ১৪৫।

Pros & Cons

Yamaha R15 V4 ভার্সনে আপনি কেন আপগ্রেড  করবেন – কারন Yamaha R15 V4 ভার্সনটির বিল্ড কুয়ালিটি V3 থেকে অনেক বেশি উন্নত। এটি আগের মডেলের তুলনায় বেশ আপডেটেড, এক্সট্রা অর্ডিনারি ডিজাইন এবং এতে যোগ হয়েছে ট্রাকশন কন্ট্রোল এবং  কুইক শিফটিং সুবিধা। তবে Yamaha R15 V4 স্পোর্টস বাইক হওয়ার কারণে ডেইলি রাইডের জন্য ব্যবহারে কিছুটা কষ্টকর, বাইকটির দাম কিছুটা বেশি এবং পিলিয়নের জন্য অতটা আরামদায়ক নয়।