মোটরসাইকেল মালিকানা পরিবর্তন পদ্ধতি ২০২২

মোটরসাইকেল মালিকানা পরিবর্তন পদ্ধতি ২০২২

মোটরসাইকেল বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় পরিবহন মাধ্যম, এবং এর ক্রয়ের পরিধিও দিন দিন বাড়ছে। অনেকেই আছেন যারা কম দামের মধ্যে সেকেন্ড হ্যান্ড মোটরসাইকেল কিনতে চান। মোটরসাইকেল বা অন্য পরিবহন যে কোনো ধরনের যানবাহনের বৈধ মালিকানা থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আজকাল আমরা প্রায়শই অন্যদের কাছ থেকে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল কিনে থাকি কিন্তু ঝামেলা এড়াতে আমরা প্রায়ই মালিকানা পরিবর্তন না করার ভুল করি। আপনার মোটরসাইকেলের মালিকানার কাগজপত্র নিজের নামে থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কারণ মোটসাইকেলের দ্বারা যদি কোনো দুর্ঘটনা অথবা অপরাধমূলক কাজের জন্য ব্যবহৃত হয়ে থাকে তাহলে ক্রেতা এবং বিক্রেতা উভয়কেই আইন প্রয়োগকারী সংস্থার দ্বারা হয়রানি ও বড় ধরনের অসুবিধার সম্মুখীন হতে হবে। আরেকটি সমস্যা হচ্ছে, আপনার মোটরসাইকেল চুরি হয়ে গেলে আপনার নামের মালিকানার কাগজপত্র ছাড়া কিছুই করা যাবে না।

তাই বাইক বিক্রির পর মালিকানার কাগজপত্র পরিবর্তন করা জরুরি। বিআরটিএ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে মোটরসাইকেলের মালিকানা পরিবর্তন করা মোটেও কঠিন নয়। আজকের আর্টিকেলে আমরা মোটরসাইকেলের মালিকানার পরিবর্তন পদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা করবো এবং আপনি কিভাবে কাজটি সম্পন্ন করতে পারবেন এবং এর জন্য আপনার কী কী জিনিস প্রয়োজন হবে তা নিয়ে একটি ছোট্ট গাইডলাইন দেওয়ার চেস্টা করবো। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

মোটরসাইকেল মালিকানা পরিবর্তন পদ্ধতি

সেকেন্ড-হ্যান্ড বাইক কেনার সময় অনেকেই জানেন না কিভাবে মোটরসাইকেলের মালিকানা হস্তান্তর করতে হয়। আমরা যখন একটি পুরাতন বা সেকেন্ড হ্যান্ড মোটরসাইকেল কিনি তখন মোটরসাইকেলের মালিকানা পরিবর্তনের জন্য আমাদের নিজের নামে মোটরসাইকেলের কাগজ বা নম্বর প্লেট তৈরি করতে হয়।

মোটরসাইকেলের মালিকানা পরিবর্তন করতে যা যা লাগবে

আপনি যদি একটি সেকেন্ড হ্যান্ড মোটরসাইকেল কিনার কথা চিন্তা করে থাকেন তবে তার মালিকানা পরিবর্তনের জন্য কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র লাগবে। যেমনঃ

  • T.O ফর্ম
  • T.T.O ফর্ম
  • আপনার মোটরসাইকেল সম্পর্কিত একটি নিবন্ধন শংসাপত্র
  • ব্যাঙ্কের ফি জমা দেওয়ার রসিদ
  • তিন কপি স্ট্যাম্প আকারের ছবি সহ মালিকের বিশেষ এবং নমুনা স্বাক্ষর ফর্ম।
  • আসল ব্লুবুক কপি।
  • বীমা শংসাপত্র
  • সেলস রসিদ
  • ক্রেতার NID ফটোকপি।
  • পলিউশন আন্ডার কন্ট্রোল (PUC) সার্টিফিকেট
  • খুচরা বিক্রেতার NID ফটোকপি।
  • রোড ট্যাক্স (RT) সার্টিফিকেট
  • সবশেষে হলফনামার কাগজ এবং বিক্রেতা এবং ক্রেতা উভয়ের ছবি সহ ৩০০ টাকা স্ট্যাম্পে চুক্তিপত্র।

মোটরসাইকেলের মালিকানা পরিবর্তনের নিয়ম

মোটরসাইকেলের মালিকানা বা যেকোনো ধরনের গাড়ির মালিকানা পরিবর্তন করা একটি দ্বিমুখী প্রক্রিয়া যা ক্রেতা এবং বিক্রেতা উভয়েই এই প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত। এই প্রক্রিয়াতে শুরুতেই যিনি মোটরসাইকেল কিনবেন এবং যিনি বিক্রি করবেন তাদের দুইজনকেই কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পাদন করে নিতে হবে।

ক্রয়কারী কার্যক্রম

একটি সেকেন্ড-হ্যান্ড বাইক কেনার আগে, ক্রেতাকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ করতে হবে যেমনঃ

  • প্রথমত, ক্রেতার স্বাক্ষর নির্ধারিত ফর্ম ‘TO’-এ দিতে হবে এবং ক্রেতার নমুনা স্বাক্ষর ‘TTO’-এর নির্ধারিত জায়গায় প্রদান করতে হবে।
  • এরপর তাদের ব্যাংকের মূল কপি পেমেন্ট রিসিট জমা দিতে হবে, এবং নির্ধারিত ফি জমা দেওয়ার জন্য বিআরটিএর মূল কপি জমা দিতে হবে।
  • ক্রেতাকে অবশ্যই T.I.N শংসাপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, NID ফটোকপি এবং বর্তমান ঠিকানার টেলিফোন বিল/বিদ্যুতের বিলের উপর নির্ভর করে জমা দিতে হবে।
  • ক্রেতার আসল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট (ব্লুবুক), ট্যাক্স টোকেন, ফিটনেস সার্টিফিকেট, রুট পারমিটের সত্যায়িত ফটোকপি দিতে হবে।
  • তারপর, ২০০ টাকা দিয়ে কিনা হলফনামা জমা দিতে হবে।
  • কোনো জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে শপথপত্রের কাগজপত্র এবং ক্রেতা যদি একটি প্রতিষ্ঠান হয় তাহলে তাদের অফিসিয়াল পেপারস প্যাডে একটি লেটার দিতে হবে।
  • ক্রেতাকে তিন কপি রঙিন স্ট্যাম্প আকারের ছবি সহ ইংরেজি ব্লক লেটার দিয়ে ফর্ম পূরণ করতে হবে।
  • ক্রেতার অবশ্যই বিআরটিএ পরিদর্শন শংসাপত্র থাকতে হবে এবং কোন ক্রেতার বিরুদ্ধে কোনো প্রকার অভিযোগ থাকা যাবে না।
  • খুচরা বিক্রেতার স্বাক্ষর ভুল হলে তাকে অবশ্যই বিআরটিএ অফিসে উপস্থিত হতে হবে। বিআরটিএ প্রয়োজনীয় অফিসে কাগজপত্র পরিবর্তন করার আগে এই সমস্ত জিনিসগুলি ক্রেতাকে সঠিকভাবে করতে হবে।
  • সবশেষে, মোটরসাইকেলটি অন-দ্য-স্পট পরিদর্শনের জন্য সংশ্লিষ্ট বিআরটিএ অফিসে উপস্থিত থাকতে হবে।

বিক্রেতা কার্যক্রম

ক্রেতার কাজের সাথে সাথে বিক্রেতারও মোটরসাইকেলের মালিকানা পরিবর্তনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ রয়েছে।

প্রথমত, বিক্রেতাকে পেমেন্ট ভাউচারে সাক্ষী এবং সরকারী স্ট্যাম্প সহ T.T.O ফর্মে তার স্বাক্ষর দিতে হবে।

এর পরে তাদের সরকার কর্তৃক নির্ধারিত নন-জুডিশিয়াল হলফনামা প্রস্তুত করতে হবে। বিক্রেতা যদি একটি কোম্পানি বা সংস্থা হয় তাহলে তাদের তাদের প্যাড, বোর্ড রেগুলেশন এবং অনুমোদনের কাগজপত্রে পরবর্তী তথ্য প্রদান করতে হবে।

যদি মোটরসাইকেলটি কোন কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয় তবে দায়িত্বরত ব্যক্তিকে অবশ্যই পরিশোধের ছাড়পত্র, ঋণ সমন্বয় বিবরণী, বিআরটিএর পরিচালক (ইঞ্জিনিয়ার) এর কাছে আবেদনপত্র জমা দিতে হবে। এবং সরকার কর্তৃক নির্ধারিত নন-জুডিশিয়াল ২০০ টাকায় ফটো সহ বিক্রয়ের হলফনামা জমা দিতে হবে।

মালিকানা পরিবর্তন করার সময় তার স্বাক্ষর ভুল হলে ক্রেতাকে সেখানে উপস্থিত থাকতে হবে এবং অবশ্যই NID এর সত্যায়িত ফটোকপি আনতে হবে।

এই সমস্ত কাজ শেষ হওয়ার পরে বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ একটি এন ইস্যু তারিখ প্রদান করবে এবং তারা মালিককে এসএমএসের মাধ্যমে অবহিত করবে। অবশ্যই, ফর্মে সেল ফোন নম্বর দিতে ভুলবেন না।

অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যা ক্রেতাকে প্রদান করতে হবে

আপনি যখন সেকেন্ড-হ্যান্ড মোটরসাইকেল কিনবেন তখন আপনার নিম্নলিখিত নথিগুলির প্রয়োজন হবে৷ গুরুত্বপূর্ণ নথিগুলি হল:


  • বৈধ ঠিকানা প্রমাণ
  • বৈধ পরিচয় প্রমাণ
  • দুটি পাসপোর্ট সাইজের ছবি

মোটরসাইকেল মালিকানা পরিবর্তন খরচ

মালিকানা পরিবর্তন ফি: ৩৫০০ টাকা

স্ট্যাম্প: ৬০০ টাকা

নথিপত্র লেখা: ৩০০ টাকা

হলফনামা ফি: ১৫০০ টাকা

বাইকের মালিকানা পরিবর্তন না করলে কি হবে?

সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ BRTA দ্বারা জরুরী বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, যদি বাইকের মালিকানা হস্তান্তর না করা হয়, তবে এটি একটি চুরি করা বাইক হিসাবে বিবেচিত হবে এবং পুলিশ কর্তৃক বাজেয়াপ্ত করা হবে। শুধু তাই নয় স্থানীয় আইন অনুযায়ী গাড়ির মালিককে জেল, জরিমানা ও শাস্তি দেওয়া হবে।

আপনি যদি একটি সেকেন্ড হ্যান্ড মোটরসাইকেল কিনেন এবং আপনার কাছে গাড়ির মালিকানার প্রমাণ না থাকে, তাহলে আপনার মোটরসাইকেলে প্রতারিত বা ছিনতাই হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। এবং এটির যে কোনও ক্ষতির জন্য ক্রেতা এবং বিক্রেতা উভয়ই দায়ী থাকবে।

যদি বাইকের মালিকানা হস্তান্তর না করা হয়, তবে এটি অনিবন্ধিত যান হিসাবে বিবেচিত হবে এবং আপনি একটি অনিবন্ধিত গাড়ি চালানোর অভিযোগের মুখোমুখি হতে পারেন।

এছাড়াও, আপনি যদি আপনার বাইকের মালিকানা অন্য ব্যক্তি বা সংস্থার কাছে হস্তান্তর না করেন, তাহলে এটি পরিত্যক্ত যান হিসাবে বিবেচিত হবে এবং আপনি একটি পরিত্যক্ত যানবাহন চালানোর অভিযোগের সম্মুখীন হতে পারেন৷ দোষী প্রমাণিত হলে আপনাকে জরিমানাও দিতে হবে। সর্বোপরি, বাংলাদেশে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল কেনাবেচার ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই সকল আইন ও বিধি-নিষেধ মেনে চলতে হবে।

শেষকথা

এই ছিলো মোটরসাইকেল মালিকানা পরিবর্তন পদ্ধতি সম্পর্কে আজকের আলোচনা। মালিকানা পরিবর্তনের এই প্রক্রিয়াটি কিছুটা সময় সাপেক্ষ এবং অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্রও এখানে প্রয়োজন হয়। অনেকেই আছেন যারা এই সমস্ত ঝামেলা এড়াতে মোটসাইকেল কিনার সময় মালিকানা পরিবর্তনের প্রক্রিয়াতে যেতে চান না। তবে আপনাদের সুবিধার্থে বলি রাখি প্রক্রিয়াটি যতোই জটিল হোক না কেনো প্রথম অবস্থায় মালিকানা পরিবর্তনের কাজটি করে রাখলে আপনি একটি বৈধ যানবাহনের মালিক হয়ে যাবেন। তা নাহলে পরবর্তীতে নানা ধরনের আইনি ঝামেলায় পরতে হতে পারে যা এই প্রক্রিয়াটির মাদ্ধমে এড়ানো সম্ভব।

আশা করছি, আমাদের আজকের আর্টিকেলটি আপনাকে অনেক উপায়ে সাহায্য করবে এবং এটি অবশ্যই আপনার জন্য উপকারী। লেখাটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ার পর আপনার মতামত কী তা অবশ্যই, কমেন্ট সেকশনে আমাদের লিখে জানাবেন।শুধু তথ্যই নয়, প্রক্রিয়াটি সম্পর্কে আপনার যদি আরও কোনো তথ্যের প্রয়োজন হয়, তাহলে নিরদিধায় আমাদের লিখে জানান।

Similar Advices