Jehan Adil Darukhanawala’র  TVS Radeon BS6 এর উপর রোড টেস্ট রিভিউ 

Jehan Adil Darukhanawala’র  TVS Radeon BS6 এর উপর রোড টেস্ট রিভিউ 

TVS কমিউটার এর এই বাইকটিতে ফুয়েল ইঞ্জেকশনের ব্যবহার কি একে আরও মিতব্যয়ী করেছে ?

বলতে দ্বিধা নেই TVS Radeon BS6 এর এই বাইকটি আমাকে চমৎকৃত করেছে। ১১০ সিসির মেট্রো স্টাইলের এই কমিউটারটি সবাই পছন্দ করেছে। অনেকেই তো এটি নিয়ে রোড ট্রিপেও বের হয়ে গিয়েছে। BS 6 ইঞ্জিনে উন্নীত হওয়ার পরে এটি বাজারে এসেছে। এখন এর ইঞ্জিন BS 6  উন্নীত হওয়া কি একে আরও জ্বালানি সাশ্রয়ী করেছে ? উত্তরটি হল হ্যা।

TVS Radeon BS6 ইঞ্জিন এবং পারফর্মেন্স

  • TVS Radeon BS6এ প্রধান পরিবর্তন হল এতে ফুয়েল ইঞ্জেকশনের সংযোজন। সর্বোচ্চ ক্ষমতা পাবেন ৮.২ পিএস যা আগের বাইকের চাইতে ০.২ কম। টর্ক থাকছে আগের মতই ৮.৭ এন এম। ওজন কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। নির্দিষ্ট করে বলতে গেলে ৪ কেজি। এর অপেক্ষাকৃত হালকা ড্রাম ভ্যারিয়াণ্ট এর ওজন ১১৬ কেজি এবং ডিস্ক ভ্যারিয়াণ্ট এর ওজন ১১৮ কেজি।
  TVS Radeon BS6 TVS Radeon BS 4
০-৬০ কিঃমিঃ/ঘণ্টা ৭.৫৩ সেকেন্ড ৭.৮৮ সেকেন্ড
  • পাওয়ার একটু কমলেও ০-৬০ কিঃমিঃ/ঘণ্টা গতি তুলতে এর এক্সিলারেশনের সময় আগের চাইতে কমেছে। TVS এর Eco Thrust Fuel Inject কে ধন্যবাদ এর ১০৯.৭ সিসির ইঞ্জিনের ক্ষমতাকে আরও বাড়িয়ে দেয়ার জন্য। 
  TVS Radeon BS6 TVS Radeon BS 4
৩০-৪০ কিঃমিঃ/ঘণ্টা (৩য় গিয়ারে) ৮.৭৯ সেকেন্ড ১০.৯২ সেকেন্ড
৪০-৮০ কিঃমিঃ/ ঘণ্টা (৪র্থ গিয়ারে) ১২.৪৫ সেকেন্ড ১৪.৫১ সেকেন্ড
  • মিড রেঞ্জে টর্কের বৃদ্ধি যানজটের ভিতর ইঞ্জিনকে প্রফুল্ল রাখবে। এটি আগের BS4 এর চাইতে ইঞ্জিনের রোল অন এক্সিলারেশন টাইমিং ২ সেকেন্ড কমিয়ে দেবে।
  • র‍্যাডিওন সবসময়ই একটি স্মুথ বাইক। BS6 মডেল আগের চাইতেও মসৃণ অনুভূতি দেবে। কম গতিতে হালকা শব্দ করলেও ৭৫- ৮০ কিঃমিঃ/ ঘণ্টা এ  স্বচ্ছন্দে চালাতে পারবেন। তবে সত্যি কথা বলতে ৮০ কিঃমিঃ/ঘণ্টায় না চালানোই ভাল।
  • এটি একটি জ্বালানি সাশ্রয়ী বাইক। City FE তে প্রতি লিটারে ৭৩.৮৬ কিলোমিটার যেতে পারবেন। আবার Highway FE তে প্রতি লিটারে ৬৮.৬ কিলোমিটার যেতে পারবেন। এর চাইতে এই বাইকে সাধিত হয়েছে অভূতপূর্ব উন্নতি। 

TVS Radeon BS6 রাইড এবং হ্যান্ডলিং 

  • ৪ কেজি ওজন বৃদ্ধি হলেও নিয়ন্ত্রণে তেমন কোন সমস্যাই হবে না ।
  • এটা এখনও যথেষ্ট হালকা বাইক এবং সহজে চালানো যাবে। এর প্লায়াণ্ট সাস্পেনশন প্রথম দিনেই আমাদেরকে মুগ্ধ করেছে। রাইড কোয়ালিটি নিয়েও এতে কোন আপোষ করা হয়নি।
ব্রেকিং TVS Radeon BS6 TVS Radeon BS 4
৮০-০ কিঃমিঃ/ ঘণ্টা ৪৮.৬০ মিটার ৪৭.১০ মিটার 
৬০-০ কিঃমিঃ/ ঘণ্টা  তার২৫.৯৯ মিটার ২৩.৭৪ মিটার 
  • ব্রেক সিস্টেমটিও ভাল। আগের ভার্সনের চাইতে এর ব্রেকিং ডিসটেন্স প্রায় একই আছে। যখন আমরা সামনের ড্রাম ডিস্ক ভ্যারিয়াণ্ট টি পরীক্ষা করছিলাম তখন ভেবেছিলাম এটা ততটা ভাল হবে না। কিন্তু আসলে টা নয়। আশা করি এই ডিস্ক ভার্সনটি আপনাকে হতাশ করবে না।

TVS Radeon BS6 Ergonomics

  • যেকোনো উচ্চতার মানুষের জন্য এটি একটি আদর্শ বাইক। এর সিটিং পজিশনে কোন পরিবর্তন আনা হয়নি। আগের মতই রাইডার এতে স্বচ্ছন্দে বসে চালাতে পারবেন।
  •  এর নরম সিট শহরে জ্যামের মধ্যে যাতায়াতের সময় আপনাকে আরামদায়ক অনুভূতি দেবে। আবার দীর্ঘ যাত্রায়ও বিরক্তি ধরবে না মোটেও। আরও মোটা ফোমের সিট ব্যবহার করলে হয়ত আরও একটু ভাল হত। TVS হয়ত এই বাইকের পরবর্তী আপডেট আনার সময় এই বিষয়টি মাথায় রাখবে। 

TVS Radeon BS6 – এর যেসব ভ্যারিয়ান্ট পাওয়া যাচ্ছে 

TVS Radeon BS6 ৩ টি  ভ্যারিয়াণ্টে পাওয়া যাচ্ছে। স্ট্যান্ডার্ড, স্পেশাল এডিশন ( ড্রাম) এবং স্পেশাল এডিশন ( ডিস্ক)। ১১০ সিসির এই কমিউটারের দাম ১,১০,০০০ টাকা এবং স্পেশাল এডিশন ড্রাম এর দাম ১,২০,০০০ টাকা। বাড়তি টাকা দিয়ে আপনি ভিন্ন রং, মেটাল ফিনিশড লিভার, রাউন্ড ফ্রেমের আয়না, বড় রাবার ট্যাঙ্কের প্যাড এবং ক্রস সটীচের মেরুন সিট পাবেন। তবে বাড়তি নিরাপত্তার জন্য আমরা স্পেশাল এডিশন ডিস্ক ভার্সনটি নিতে পরামর্শ দেব। যার দাম পড়বে ১,৩০,০০০ টাকা।

মুল্যায়ন 

TVS Radeon BS6 দাম
বেইস এডিশন ১,১০,০০০ টাকা
স্পেশাল এডিশন ( ড্রাম)  ১,২০,০০০ টাকা 
স্পেশাল এডিশন (ডিস্ক) ১,৩০,০০০ টাকা

এই সেগমেণ্ট এর অন্যান্য বাইকগুলোর মত এতে ব্যাপক কোন পরিবর্তন আনা হয়নি যেমনটা হিরো প্যাশন প্রো ১১০ এ করা হয়েছে ( যেটা সম্পূর্ণ নতুন একটা বাইক)। তারপরও বলব নিত্যদিনের চলাচলের জন্য এই বাইকের তুলনা নেই। আপনি যদি এই বাইকটি কিনেন তাহলে জ্বালানি সাশ্রয় নিয়ে আর ভাবতে হবে না। 

Similar Advices



Leave a comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.