মোটরসাইকেল থেকে ভালো পারফরম্যান্স পেতে কি কি করবেন?

মোটরসাইকেল থেকে ভালো পারফরম্যান্স পেতে কি কি করবেন?

দৈনন্দিন চলাফেরার জন্য মোটরসাইকেল বেশ সুবিধাজনক। তবে একটি বাইক কত ভালো পারফরম্যান্স দিচ্ছে তা আমরা মোটরসাইকেল রাইডিং ও কমফর্টেবিলিটি থেকে বুঝতে পারি।  

অনেক কারণে বাইক ঠিক মতন পারফর্ম করতে পারে না। যেহুতু এটি মেশিন তাই এরঅটোপার্টসগুলো একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর নষ্ট হয়ে পড়বে এবং সঠিক মেরামতের প্রয়োজন পড়বে। তাই কিছু  নিয়মকানুন অনুযায়ী বাইক মেইন্টেন করা দরকার যাতে প্রতিবার পারফরম্যান্স বজায় থাকে। 

এখানে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো বাইকের প্রতি যত্নশীল হওয়া। আপনি সঠিক সময়ে ইঞ্জিন অয়েল পরিবর্তন করছেন কি না, অথবা কোয়ালিটি ফুয়েল ব্যবহার করছেন কি না, এমন অনেক মেকানিকেল বিষয়গুলো আপনার বাইক পারফরম্যান্সের উপর প্রভাব ফেলে।

ছোট ছোট সমস্যা বাইকের পারফরম্যান্স সহ তার দীর্ঘায়ুতেও প্রভাব ফেলে। যেমন ক্লাচ কেবল এডজাস্টমেন্ট ঠিক আছে কি না, টায়ার প্রেসার সঠিক মাত্রায় আছে কি না তা পরীক্ষা করা, এয়ার ফিল্টার অয়েল ফিল্টার জ্যাম হয়ে আছে কি না, ড্রাইভ চেইন ঠিক নিয়মে লুব করা হয়েছে কিনা, এসমস্ত ব্যাপারগুলো নিয়মিত চেক করা আবশ্যক। 

মোটরসাইকেল সঠিক নিয়মে চেক আপ বা পরিচর্যা করার মাধ্যমে এর দক্ষতা বৃদ্ধি পায়। এর সাথে রাইডিং কমফর্টেবিলিটি আরও বাড়ে। বাইক সচল রাখতে প্রতিনিয়ত ইঞ্জিনের বিশেষ যত্ন নিতে হবে। শুধু বাইক পারফরম্যান্স নয়, নিরাপদ মোটরসাইকেল রাইডিং নিশ্চিত করতে অবশ্যই বাইকের নিয়মিত যত্ন নিতে হবে। 

এছাড়া, বাইকের অন্যান্য অটোপার্টস পরিষ্কার করা আছে কিংবা আপগ্রেড করা আছে কিনা সেখানে বিশেষ মনোযোগ দিন। মোটরসাইকেলের পারফরম্যান্স বজায় রাখতে বাইকের যন্ত্রাংশ সচল থাকা প্রয়োজন।   

আপনার মূল্যবান বাইকের নিয়মিত যত্ন নিন এবং বাকিদের ব্যাপারে সচেতন হতে সাহায্য করুন। মোটরসাইকেলের পারফরম্যান্স বুস্ট করতে সঠিক নিয়মে এটি মেইনটেইন করা সকল চালকদের দায়িত্ব। 

মোটরসাইকেল থেকে ভালো পারফরম্যান্স পেতে কি কি করবেন?

মোটরসাইকেলেরর পারফরম্যান্স বৃদ্ধি করতে যা যা করণীয়

যারা দীর্ঘসময় ধরে মোটরসাইকেল ব্যবহার করে আসছেন তারা জানেন ঠিক সময়ে সার্ভিসিং করা কতটা জরুরি। তবে সার্ভিসিং এর পাশাপাশি মোটরসাইকেলের পারফরম্যান্স বুস্ট করতে অন্যান্য আরও বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। আপনি কত স্পীডে বাইক চালাচ্ছেন, গিয়ার কিভাবে হ্যান্ডেল করছেন অথবা আপনার বাইক অতিরিক্ত ওজন বহন করছে কি না, সমস্ত ব্যাপারগুলো ঠিক না রাখলে বাইকের দক্ষতা কমে যাবে। এছাড়াও, বিস্তারিত কিছু বিষয় নিয়ে আমরা আলোচনা করবো যা আপনার মোটরসাইকেলেরর পারফরম্যান্স বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে —-

  • এয়ার ইনটেক সিস্টেম ঠিক রাখা প্রয়োজন 

বাইকের পারফরম্যান্স বৃদ্ধি করতে এয়ার ইনটেক সিস্টেমের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। এটি ইঞ্জিনের শক্তি উৎপাদন ক্ষমতা দ্বিগুন বাড়িয়ে দেয় এবং বাইকের ইঞ্জিন সচল রাখে। এয়ার ইনটেক সিস্টেম বৃদ্ধি করার মাধ্যমে ইঞ্জিনের কার্যক্ষমতা বেড়ে যায় এবং ইঞ্জিন অধিক পাওয়ার উৎপাদন করতে সক্ষম হয়। এর ফলে এক্সেলেরেশন পাওয়ার বৃদ্ধি পায় এবং বাইকের পারফরম্যান্স ভালো রাখে।  

যখন মোটরসাইকেলের এয়ার ফিল্টার আমরা দীর্ঘ সময় পরিবর্তন করি না তখন এয়ার ফিল্টারে অধিক ময়লা জমে এবং মোটরসাইকেলের পাওয়ার আউটপুট কমে যায়। অতএব, বাইকের সঠিক এক্সেলেরেশন বজায় রাখতে এয়ার ফিল্টার পরিবর্তন বা পরিস্কার করা অত্যান্ত জরুরি। এছাড়াও, বাজার থেকে উন্নতমানের এয়ার ফিল্টার কিনতে হবে। ভালো কোয়ালিটির এয়ার ইনটেক সিস্টেম ব্যবহারে বাইকের পারফরম্যান্স আরও বৃদ্ধি পায়।  

  • মডিফাইড ইগ্নিশন 

মডিফাইড ইগ্নিশন আপনার ইঞ্জিনের শক্তি উৎপাদনের ক্ষমতা বাড়ায় ফলে বাইকের পারফরম্যান্স বৃদ্ধি হয় বেশি মাত্রায়। এছাড়াও, বাইকে গোল্ড প্লেটেড বা প্লাটিনাম প্লেটেড স্পার্ক প্লাগ ইনস্টল করলে ইঞ্জিন ইগ্নিশন বেড়ে যাবে এবং এটি বাইকের ভালো পারফরম্যান্স নিশ্চিত করবে। 

  • ফুয়েল ফিল্টার ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহারের গুরুত্ব

একটি ফুয়েল ফিল্টারের কাজ হলো ফুয়েলকে রিফাইনড করে ইঞ্জিনে প্রবেশ করানোর। ফুয়েল ফিল্টারকে পরিষ্কার করে যত্নে রাখলে এটি ইঞ্জিনের উপর ভালো প্রভাব ফেলে। ফলে ইঞ্জিনে অয়েল লুব্রিকেশন বেশ সচল হয় এবং বাইক থেকে ভালো পারফরম্যান্স পাওয়া যায়। এর পাশাপাশি অবশ্যই ভালো মানের ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করতে হবে। খারাপ মানের তেল ব্যবহার করলে পারফরম্যান্স মনের মত পাবেন না।  

প্রিমিয়াম গ্যাসোলিন, অকটেন বা যেকোনো মানসম্পন্ন প্রিমিয়াম ফুয়েল ব্যবহার করলে বাইক পারফরম্যান্স বৃদ্ধি হয়। আপনার বাইকের ধরণ অনুযায়ী সঠিক ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করুন। সুতরাং, বাইকের সর্বোচ্চ পারফরম্যান্স নিশ্চিত করতে ভালো মানের ফুয়েল ফিল্টার ইঞ্জিন ফুয়েল ব্যবহার করা উত্তম।

  • এডজাস্টেবল সাসপেনশন ইনস্টল

বাইকে এডজাস্টেবল সাসপেনশন ইন্সটল করলে আপনি বাইক নিয়ন্ত্রণের জন্য ভালো কন্ট্রোলিং পাওয়ার পাবেন। এর ফলে বাইকের পারফরম্যান্স ভালো রাখতে পারবেন। উঁচুনিচু সবরকম চাপ নেবার ক্ষমতা রাখে বাইকের এই সাসপেনশন। তাই আপনার বাইকের পারফরম্যান্স বৃদ্ধি করতে অবশ্যই ভালো মানের এডজাস্টেবল সাসপেনশন ইনস্টল করবেন। 

একইসাথে, দ্রুত গতিতে গাড়ি চালানো থেকে বিরত থাকুন। এতে ইঞ্জিনের প্রেসার বাড়ে এবং বাইকের ক্ষতি হয়। অনেক বাইকারেরা এই সাধারণ ব্যাপারে বেশি ভুল করে।

  • ব্রেক প্যাড

বাইকের পারফরম্যান্স ভালো রাখতে দরকার একটি ভালো কোয়ালিটি এর ব্রেক প্যাড ব্যবহার করা। বাজারে বিভিন্ন ধরনের ব্রেক প্যাড পেয়ে যাবেন যার মধ্যে উল্লেখিত কিছু আছে যেমনসিন্টার্ড ব্রেক প্যাড, অর্গানিক ব্রেক প্যাড এবং কম্পোসিট ব্রেক প্যাড। নিম্নমানের ব্রেক প্যাডগুলো বাইকের ডিস্কের সাথে আটকে যায় ফলে পারফরম্যান্স নষ্ট হয়। কিন্তু ভালো মানের ব্রেক প্যাড ব্যবহার করলে সহজেই এমনটা হয় না। ভালো কোয়ালিটির ব্রেক প্যাড বাইকের পারফরম্যান্স অটুট রাখে।

বাইক পারফরম্যান্স ভালো রাখতে বাড়তি কিছু টিপস

  • ভাল মানের ফুয়েল স্টেশন থেকে ভালো গ্রেডের ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করলে মোটরসাইকেলের পারফর্মেন্স ভালো হবে। 
  • স্ট্যান্ডার্ড স্পার্ক প্লাগ ব্যবহার করুন। এতে করে বাইক ভালো পারফর্ম করে। 
  • এয়ার ফিল্টার শুকনো এবং পরিষ্কার রাখতে হবে। সময়মতন পরিবর্তন করুন নষ্ট হবার আগে। এতে মোটরসাইকেল রাইডিং এর ভালো প্রভাব পড়ে। 
  • বাইকের পারফরম্যান্স বুস্ট করতে নিয়মিত ড্রাইভ চেইন পরিষ্কার লুব করা জরুরি। 
  • সুইং আর্ম সঠিকভাবে এডজাস্ট করা প্রয়োজন 
  • ব্রেক ক্লিপারের এসেম্বলী ড্রাম ব্রেক এর এলাইনমেন্ট ঠিক রাখতে হবে। 
  • বাইকের টায়ারগুলোতে সঠিক এয়ার প্রেশার বজায় রাখলে মোটরসাইকেলের পারফরম্যান্স বৃদ্ধি হয়। 
  • বাইক পারফরম্যান্স ভালো রাখতে ফুয়েল ইনজেক্টর এবং থ্রোটল বডি পরিষ্কার রাখা অত্যান্ত জরুরি। 
  • অথেন্টিক সার্ভিস সেন্টার থেকে সার্ভিসিং করানো বাইকের জন্য কল্যাণময়।
  • হাই স্পীডে মোটরসাইকেল চালানো যাবে না। এতে বাইকের বাকি অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং পারফরম্যান্স খারাপ হয়। সেক্ষেত্রে স্বাভাবিক নিয়মে বাইক চালানো উত্তম। 
  • বাইকে অতিরিক্ত লোড নিলে ইঞ্জিন প্রেসার পড়ে বাইকের সক্ষমতা কমে যায়। তাই বাড়তি ওজন বাইক থেকে সরিয়ে ফেলতে হবে। 

পরিশেষে

বাংলাদেশে মোটরসাইকেল কোম্পানিগুলো বাইকের দক্ষতা বাড়াতে বিশেষ কিছু সার্ভিস অফার করে থাকে। তবে মোটরসাইকেলের সার্ভিসিং অথেন্টিক সেন্টার থেকে করানো উত্তম। অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যেন এক্সপার্ট দ্বারা সার্ভিসিং করানো হয়। বাইকের গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলো সঠিক নিয়মে যত্ন  করতে পারছেন কিনা সেই দিকে বিশেষ নজর রাখুন।    

মোটরসাইকেল রাইডিং কমফোর্টেবল করতে অবশ্যই এর দক্ষতা বাড়াতে হবে।  এর জন্য বাইকের প্রতি যত্নশীল হতে হবে সঠিক সময়ে সার্ভিসিং করাতে হবে। যেভাবে সাবধানে বাইক চালানো জরুরি সেইভাবে বাইকের পারফরম্যান্স ভালো রাখতে এর নিয়মিত পরিচর্যা করাটাও জরুরি। 

বাইকের দক্ষতা বাড়াতে সবসময় ভালো কোয়ালিটির ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করা উত্তম। অনেকেই আবার টাকা বাঁচাতে গিয়ে নিম্নমানের ফুয়েল তাদের মোটরসাইকেলে ব্যবহার করে থাকে। এতে বাইকের সক্ষমতা কমে যায় এবং ইঞ্জিনও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এছাড়া বাইকের পারফরম্যান্স সহ এর দীর্ঘায়ু বজায় রাখতে অটোপার্টসগুলো সময়ের সাথে আপগ্রেড করুন। এতে বাইকের দক্ষতা বাড়ানোর পাশাপাশি এই অভ্যাস নিরাপদ মোটরসাইকেল রাইডিং নিশ্চিত করবে।

সচরাচর জিজ্ঞাসা

১. ফুয়েল ফিল্টার ব্যবহার কতটা গুরুত্বপূর্ণ?

একটি ফুয়েল ফিল্টারের কাজ হলো ফুয়েলকে রিফাইনড করে ইঞ্জিনে প্রবেশ করানোর। ফুয়েল ফিল্টারকে পরিষ্কার করে যত্নে রাখলে এটি ইঞ্জিনের উপর ভালো প্রভাব ফেলে।

২. মডিফাইড ইগ্নিশন কি?

মডিফাইড ইগ্নিশন আপনার ইঞ্জিনের শক্তি উৎপাদনের ক্ষমতা বাড়ায় ফলে বাইকের পারফরম্যান্স বৃদ্ধি হয় বেশি মাত্রায়।

৩. ভালো ব্রেক-প্যাড কোনগুলো? 

বাজারে বিভিন্ন ধরনের ব্রেক প্যাড পেয়ে যাবেন যার মধ্যে উল্লেখিত কিছু আছে যেমনসিন্টার্ড ব্রেক প্যাড, অর্গানিক ব্রেক প্যাড এবং কম্পোসিট ব্রেক প্যাড।

৪. এয়ার ফিল্টার কতদিন পর পরিবর্তন করা দরকার? 

মোটরসাইকেলের এয়ার ফিল্টার আমরা দীর্ঘ সময় পরিবর্তন করি না তখন এয়ার ফিল্টারে অধিক ময়লা জমে এবং মোটরসাইকেলের পাওয়ার আউটপুট কমে যায়। সাধারণত ৫০০০ থেকে ৬০০০ কিঃমিঃ এর পর এটি পরিবর্তন করতে হয়। 

Similar Advices



Leave a comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.