কীভাবে শুরু করবেন অটো পার্টসের ব্যবসা?

কীভাবে শুরু করবেন অটো পার্টসের ব্যবসা?

যুগ যুগ ধরে মোটরসাইকেল এদেশের তরুণ প্রজন্মের আবেগের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে রয়েছে। বিভিন্ন বয়সের মানুষ আজকাল যে হারে বাইক কিনছেন এবং চালাচ্ছেন, সেই থেকে ধরে নেয়া যায়, অটো পার্টসের ব্যবসা শীঘ্রই এই দেশে অন্যতম লাভজনক একটা পেশায় পরিণত হবে। আপনার যদি মোটরবাইক নিয়ে সবসময় পড়াশুনা করার ও মোটরবাইক মেইন্টেইনেন্সে আগ্রহ থেকে থাকে, তাহলে অটো পার্টসের ব্যবসা আপনার জন্য দারুণ একটা অপশন।

আজকে আমরা জানবো সফলভাবে একটি অটো পার্টসের ব্যবসা কীভাবে শুরু করা সম্ভব, আর এজন্য আপনাকে কী কী জিনিস জানতে ও শিখতে হবে।

অটো পার্টসের ব্যবসা কেনো করবেন?

যেকোনো ব্যবসা শুরু করার আগেই আমাদের জানা দরকার সেই ব্যবসায় কতটুকু লাভ বা সুবিধা রয়েছে। অটো পার্টসের ব্যবসার ভালো দিকগুলো নিচে তুলে ধরছিঃ

  • মোটরসাইকেল পার্টসের ব্যবসা বেশ লাভজনক। কারণ মোটরবাইক যতদিন চলবে, ততদিন পর্যন্ত এর পার্টসের চাহিদাও থাকবে।
  • আপনার যদি মোটরবাইকের প্রতি ব্যাপক টান ও ভালোবাসা থাকে, তাহলে অটো পার্টসের ব্যবসা আপনি মন থেকে উপভোগ করবেন। আপনার প্যাশনকে পেশায় পরিণত করার পাশাপাশি এর থেকে ভালো মানের উপার্জনও করতে পারবেন।
  • বাইকের পার্টস নিয়ে সবসময় কাজ করায় আপনি বাইক মেইন্টেইনেন্সের ও মডিফিকেশনের ব্যাপারেও অভিজ্ঞ হয়ে উঠবেন।
  • এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে বড় কোন ডিগ্রী নেয়ার প্রয়োজন নেই। আপনার এলাকার অটো সার্ভিসিং সেন্টার, আর এই ইন্ডাস্ট্রির অভিজ্ঞ লোকদের সাথে কাজ করে আপনি অনেক কিছু শিখতে পারবেন।
  • বাইক সার্ভিসিং সেন্টারের চাহিদা অনেক বেশি হওয়ায়, আপনার কখনও কাস্টমারের অভাব হবে না।
  • আপনার অটো পার্টসের শপই আপনার নিজস্ব অফিস হবে। প্রতিদিন নানা রকম মানুষের সাথে কাজ করার সুযোগ পাবেন।
  • মোটরসাইকেল পার্টসের ব্যবসা মানুষের মুখে মুখেও বেশ প্রচার-প্রসার লাভ করে। ভালো মানের সার্ভিস দিতে পারলে, আপনাআপনিই ভালো গ্রাহক পেয়ে যাবেন। আর তারাও খুশি মনে আপনার জন্য আরো গ্রাহক নিয়ে আসবেন।

কীভাবে শুরু করবেন অটো পার্টসের ব্যবসা?

ব্যবসা নিয়ে পড়াশুনা

মোটরসাইকেল পার্টস নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে চাইলে, আপনাকে আগে এই ব্যবসা নিয়ে ভালোভাবে পড়াশুনা করতে হবে। এই ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কেও ভালোভাবে ধারণা নিতে হবে।

আইনী অনুমোদন

যেকোনো ব্যবসা শুরু করার জন্য যথাযথ আইনী অনুমোদন নেয়া ও দরকারী সব কাগজপত্র সংগ্রহে রাখা প্রয়োজন। অটো পার্টস বিজনেস শুরু করার আগেও আপনাকে সব রকম নিয়মকানুন মেনে, ও রেজিস্ট্রেশন করে ব্যবসার লাইসেন্স অর্জন করে নিতে হবে।

ব্যবসার ধরণ বেছে নিন

অটো পার্টসের ব্যবসা মূলত ৪ ধরণের হয়ে থাকেঃ

  1. অটোমোবাইল পার্টসের খুচরা দোকানঃ অটো পার্টস ব্যবসা শুরু করার সবচেয়ে প্রচলিত ও লাভজনক ধরণ হচ্ছে এই খুচরা দোকান। এই ধরণের ব্যবসায় আপনাকে খুচরা বিক্রির জন্য একটা ভালো জায়গা দেখে দোকান নিতে হবে। সেই দোকানে কাস্টমার আসবেন ও পণ্য কিনতে পারবেন।
  2. অটোমোবাইল পার্টস দোকান ও ওয়ার্কশপঃ উদ্যোক্তাদের জন্য এটা আরো লাভজনক একটি অপশন। এখানে কাস্টমাররা অটো পার্টস কেনার পাশাপাশি সেগুলো বদলানো, সারানো, ইত্যাদি সার্ভিস নিতে পারেন। তবে, এই ব্যবসায় অনেক পরিমানে বিনিয়োগ করতে হবে ও কৌশলের সাথে পরিকল্পনা করে আগাতে হবে।
  3. অটোমোবাইল পার্টস অনলাইন শপঃ  আপাতত দোকান দেয়া ও কর্মচারীদের খরচ জোগানোর মত সামর্থ্য যদি আপনার না থাকে, তাহলে সোশ্যাল মিডিয়া বা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে একটি অনলাইন শপ খুলে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এখানে বিনিয়োগ উপরের দু’টি অপশনের চেয়ে কম লাগবে, আর আপনি চাইলে নিজের বাসা থেকেও এই ব্যবসার কাজ চালাতে পারবেন।

যাদের নিজেদের দোকান ও সার্ভিস শপ আছে, তারাও চাইলে বাড়তি সার্ভিস হিসেবে অনলাইন শপ চালু করতে পারেন। 

  1. অটোমোবাইল পার্টস ফ্র্যাঞ্চাইজ অর্থাৎ নির্দিষ্ট ব্র্যান্ডের ডিলারঃ আপনার যদি অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রিতে আগে কাজ করার কোন অভিজ্ঞতা না থাকে, তাহলে আপনার ব্যবসার শুরুটা যেকোনো ব্র্যান্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজ পার্টনার হিসেবে করতে পারেন। এমনকি খুচরা অটো পার্টস ডিস্ট্রিবিউটার ও ডিলার হিসেবে কাজ করার অপশনও রয়েছে।

অটো পার্টস দোকানের লোকেশন

যেকোন ব্যবসায় উন্নতি করার জন্য দোকানের লোকেশন ভালো হওয়া খুবই জরুরি। এমন এলাকায় দোকান দিতে হবে যেখানে প্রচুর বাইক ও গাড়ি যাওয়া আসা করে, যেমন- অফিস এলাকা, বাণিজ্যিক তথা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এলাকা ইত্যাদি। আপনার দোকানের আশেপাশে মোটরবাইক বা অটোমোবাইল শো-রুম থাকলে আরো ভালো হয়।

দোকান নেয়ার পাশাপাশি চেষ্টা করবেন অনলাইনে সার্ভিস বা পণ্য দেয়ার জন্য নিজস্ব একটি ওয়েবসাইট বা অনলাইন শপ খুলে নিতে। তাহলে দ্রুত লাভবান হবেন।

বিনিয়োগের ব্যবস্থা করুন

ব্যবসার শুরুতেই আপনাকে বেশ ভালো পরিমানে মূলধন বিনিয়োগ করতে হবে। প্রয়োজনীয় সবরকম পণ্য আপনার কাছে না থাকলে কাস্টমাররা অন্য শপ থেকে পণ্য নিতে চাইবেন। যদি আপনার কাছে মূলধন কিছুটা কম থাকে, তাহলে লোন নেয়ার চেষ্টা করতে পারেন। অথবা বিনিয়োগকারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

অটো পার্টসের স্টক পর্যাপ্ত রাখুন

ব্যবসার মূল চালিকাশক্তি হচ্ছে পণ্য ও সেবা। আপনার দোকানে বিভিন্ন ধরণের ও ব্র্যান্ডের পণ্য স্টকে যথেষ্ট না থাকলে খুব শীঘ্রই কাস্টমারদের আগ্রহ কমে যাবে। অটো পার্টসের ব্যবসায় যেসকল পণ্য খুব ঘন ঘন বিক্রি হয় সেগুলো হচ্ছেঃ 

  • স্পার্ক প্লাগ
  • অয়েল ফিল্টার
  • ওয়েট রোলার
  • অ্যাক্সিলারেটর ও ব্রেকের তার
  • গিয়ার
  • চেইন সেট
  • সিট কভার
  • হেলমেট
  • হেডলাইট ও টেইল লাইট
  • লুব্রিক্যান্ট ও ইঞ্জিন অয়েল
  • লুকিং গ্লাস
  • সামনে ও পেছনের বাম্পার

অটো পার্টসের ব্যবসায় যেসব চ্যালেঞ্জ আসবে

যেকোনো ব্যবসা করতে গেলে চ্যালেঞ্জ আসবেই। সেজন্য আপনাকে মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। মোটরবাইক পার্টসের ব্যবসায় নামার পর আপনি যেসব চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবেন, তার মধ্যে বিশেষ কয়েকটি উল্লেখ করছি।

প্রতিযোগিতা

যেহেতু এই ব্যবসা নতুন কিছু নয়, তাই আপনার আগেও অনেকেই এই ব্যবসা শুরু করেছেন। এদের মধ্যে কয়েকজন অবশ্যই সফল হয়েছেন, এবং আপনার ব্যবসা সফল হওয়ার পথে তারা আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সাহস হারালে চলবে না। আপনার প্রতিদ্বন্দ্বীরাও একদিনে সফল হয়ে ওঠেননি। আপনিও একটু একটু করে নিজের ব্যবসাকে বড় করার জন্য ছোট ছোট পদক্ষেপ নিয়ে এগিয়ে যান।

ভালো সাপ্লায়ার পাওয়া

অটো পার্টসের ব্যবসায় সফল হওয়ার একটা ভালো মাধ্যম হচ্ছে সঠিক সাপ্লায়ার ও খুচরা বিক্রেতাদের সাথে সংযুক্ত হওয়া। এই কাজটা খুব একটা সহজ নয়। দেশের সবচেয়ে ভালো অনলাইন মার্কেটপ্লেসে সার্চ দিয়ে বিভিন্ন সাপ্লায়ার ও খুচরা বিক্রেতাদের তালিকা পেয়ে যাবেন, পাশাপাশি তাদের রেটিং ও পণ্যের দামের তুলনা করতে পারবেন।

উপযুক্ত কর্মচারী

সঠিক ও উপযুক্ত কর্মচারী আপনার মোটরসাইকেল পার্টসের ব্যবসা সফল হওয়ার পেছনে আপনার ডান হাত হয়ে উঠতে পারে। কঠোর পরিশ্রমী ও যোগ্য কিছু লোক খুঁজে নিন, এবং আপনার কোম্পানিতে তাদের কাজ করার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ ও অন্যান্য সুবিধা নিশ্চিত করুন। আপনি যেহেতু এই ব্যবসায় নতুন, সেক্ষেত্রে তাদের জ্ঞান ও পূর্ব অভিজ্ঞতাও আপনার অনেক কাজে আসবে। তাই কর্মচারী নিয়োগ দেয়ার সময় এই জিনিসগুলো অবশ্যই খেয়াল রাখা জরুরি।

উপসংহার

আমাদের দেশে মোটরসাইকেল পার্টসের ব্যবসা দাঁড় করানো আসলে খুব কঠিন নয়। এই ব্যবসায় কোন বড় ডিগ্রি নয়, বরং ভালো কৌশল ও পরিকল্পনা আপনাকে এই ইন্ডাস্ট্রিতে অনেক দূর নিয়ে যাবে। আপনি যদি একজন মোটরবাইক-প্রেমী হন, তাহলে সাধারণ আর দশটা মানুষের চেয়ে এমনিই আপনি এই ব্যাপারে একটু হলেও বেশি জানেন। এমনকি যারা মোটরসাইকেলের কিছুই জানে না, তারাও চাইলে এই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। আপনাকে শুধু ভালোভাবে রিসার্চ করে এবং আমাদের মত বিভিন্ন মোটরসাইকেল ব্লগ থেকে একটু পড়াশুনা করে নিতে হবে। কাস্টমারদের সাথে সঠিক ভাবে লেনদেন করা, স্টকে প্রয়োজনীয় সব পণ্য রাখা আর একটুখানি আত্মবিশ্বাস, ব্যস! আপনার নতুন অটো পার্টস ব্যবসার সফল হওয়ার জন্য রইলো শুভকামনা। 

গ্রাহকদের নিয়মিত কিছু প্রশ্নের উত্তর

অটো পার্টস বিজনেস শুরু করতে কত টাকা লাগে?

এই ব্যবসা শুরু থেকেই বেশ ব্যয়বহুল। কিন্তু একবার ব্যবসা দাঁড়িয়ে গেলে লাভও সেই পরিমাণেই পাবেন। সাধারণত মোটরসাইকেল পার্টসের ব্যবসা শুরু করতে বাংলাদেশে ২০ লাখ থেকে ৬০ লাখ টাকা পর্যন্ত লাগতে পারে।

অটো পার্টস ব্যবসায় বিক্রি বাড়াবো কীভাবে?

আপনার অটো পার্টস ডিলারশিপ ব্যসায় বিক্রি বাড়ানোর কিছু ভালো টিপস হচ্ছেঃ

  • কাস্টমার সার্ভিস ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উপর গুরত্ব দিন
  • দাম নির্ধারণ করার ব্যাপারে কৌশলী হন
  • আপনার স্টক নিয়মিত আপডেট করুন এবং নতুন, পুরনো সব মডেলের পার্টস আছে কি না খেয়াল রাখুন
  • অটো পার্টস ও অ্যাক্সেসরিজ বিক্রির জন্য অনলাইন শপ বা ওয়েবসাইট খুলুন
  • বাতিল ও অপ্রয়োজনীয় পার্টস সরিয়ে ফেলুন
  • মার্কেটিং পরিকল্পনার দিকে নজর দিন

অটো পার্টসের ব্যবসায় কোন চ্যালেঞ্জ আছে?

এই ব্যবসা দেশে খুব একটা নতুন না, আর অনেক প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী এই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছেন। তাই এই ব্যবসার একটি অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে বড় বড় প্রতিদ্বন্দ্বীর সাথে টেক্কা দেয়া।

কী কী অটো পার্টস স্টকে রাখবো?

মোটরসাইকেলের সাথে জড়িত সব রকম পণ্যই এই ব্যবসায় আপনাকে স্টকে রাখতে হবে। আমাদের প্রতিবেদনে দ্রুত বিক্রি হওয়া কিছু পণ্যের নাম উল্লেখ করেছি। এখানে আরও কিছু পণ্যের নাম দেয়া হলোঃ

  • চ্যাসিস
  • ইঞ্জিন
  • ট্রান্সমিশন
  • ফাইনাল ড্রাইভ
  • টায়ার ও রীম
  • বডি প্যানেল
  • মাড-গার্ড
  • লাইট
  • হেলমেট, গ্লাভস ইত্যাদি নিরাপত্তা সামগ্রী

অটো পার্টস ব্যবসায় লাভ কেমন হয়?

সাধারণত আমাদের দেশে অটোমোবাইল ডিলাররা পরিবহনের দামের উপর ৪-৫% লাভ করেন এবং পার্টসের ক্ষেত্রে এই লাভ মোট দামের ১৫-২০%। আন্তর্জাতিক বাজারে এই মার্জিন একটু বেশি; পরিবহনের দামের উপর ৭-৮% এবং পার্টসের দামে ৩০-৪০% পর্যন্ত লাভ থাকে।

Similar Advices