বাইক দীর্ঘদিন বন্ধ? দেখা দিতে পারে যেসব সমস্যা

বাইক দীর্ঘদিন বন্ধ? দেখা দিতে পারে যেসব সমস্যা

দীর্ঘ সময় ব্যবহার না করার ফলে বাইকে নানা রকম সমস্যা দেখা দেয়। এ সকল বাইকের সমস্যা গুলোর মধ্যে রয়েছে, ইঞ্জিন থেকে আওয়াজ আসা, যন্ত্রপাতি জ্যাম হয়ে যাওয়া, ফুয়েল দ্রুত শেষ হয়ে যাওয়া ইত্যাদি। এমনকি,বাইকের অবস্থা এতটাই খারাপ হয়ে যায় যে বাইক স্টার্ট পর্যন্ত হয় না।

তবে বাইক স্টার্ট না হওয়ার বিশেষ কিছু কারণ হলো ব্যাটারি অচল হয়ে যাওয়া অথবা পর্যাপ্ত পরিমাণে ইঞ্জিন অয়েল না থাকা। দীর্ঘ সময় পর্যন্ত বাইক বন্ধ রাখলে এরকম নানান সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়াও, লম্বা সময়ের পর একবার বাইক চালানো শুরু করলে হঠাৎ চলন্ত অবস্থায় বাইক বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এমনটা বার বার হলে অবশ্যই বাইক সার্ভিসিং করানো উচিত।

আপনার বাইকের ইঞ্জিনের অবস্থা যদি ভালো থাকে কিন্তু তারপরও যদি লক্ষ্য করেন ইঞ্জিন আগের মতো সচল নেই, তাহলে আপনার ব্যবহৃত ইঞ্জিন অয়েলের মান একবার যাচাই করে নিন। অনেক সময় সার্ভিসিং করার পরও ইঞ্জিন ভালো পারফর্ম করে না। এমনটা হলে বুঝবেন আপনি নিম্নমানের ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করছেন।

সাধারণত অধিক সময়ের পর বাইক চালানো শুরু করলে ইঞ্জিন ঠিক মতো কাজ করে না। তবে ইঞ্জিন সার্ভিসিং করানোর পরও যদি লক্ষ্য করেন যে বাইক চালানোর সময় ইঞ্জিন থেকে অতিরিক্ত ধোয়া বের হচ্ছে বা খসখসে শব্দ বেশি আসছে, তাহলে আপনার ইঞ্জিন অয়েলের কোয়ালিটি পরীক্ষা করতে হবে।

লম্বা সময়ের পর বাইক চালানোর কথা চিন্তা করলে অবশ্যই আগে বাইকের পার্টসগুলো চেক করে নিতে হবে। বাইকের কার্যকারিতা আগের মতো আছে নাকি অবনতি হয়েছে, সেইসব ব্যাপারে বিশেষ নজর দিন।

কোথায় মেরামত করা প্রয়োজন সেই বিষয়ে লক্ষ্য রাখুন। নিরাপদ বাইক রাইডিং নিশ্চিত করতে একটি নির্দিষ্ট সময় পর মোটরবাইকের ইঞ্জিন এবং বাকি যন্ত্রপাতি পরীক্ষা করিয়ে নিতে হবে।

দীর্ঘ সময় পর হঠাৎ বাইক চালু করলে যে ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন

  • স্পার্ক প্লাগে কোন সমস্যা আছে কি না তা চেক করে নিন

বাইক স্টার্ট না হলে একবার চেক করে নিন আপনার বাইকের স্পার্ক প্লাগ ঠিক মতো কাজ করছে কি না। উঁচু নিচু রাস্তায় চলার সময় বাইকের স্পার্ক প্লাগ নড়বড়ে হয়ে যেতে পারে। যার ফলে প্লাগে বিদ্যুৎ চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে এবং ইঞ্জিন কাজ করা বন্ধ হয়ে যাবে।

অন্যদিকে, স্পার্ক প্লাগে বেশি মাত্রায় কার্বন জমে গেলে তা জ্যাম হয়ে যায়। এমনটা হলে আপনার বাইকের স্পার্ক প্লাগ যথাযথ পারফর্ম করবে না এবং বাইক চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে।

এমন সমস্যার সম্মুখীন হলে প্রথমে স্পার্ক প্লাগটি খুলে পরিষ্কার করে নিন, তারপর এটি জায়গা মতো আবার ফিট করে দিন। এক্ষেত্রে স্পার্ক প্লাগটি ভালো করে পরিষ্কার করে নিলে সেটা আবার ব্যবহারযোগ্য হবে। যদি পরিষ্কারের পরও এর কার্যক্ষমতা আগের থেকে কমে যায়, তাহলে আপনার উচিত স্পার্ক প্লাগটি বদলে ফেলা।

  •  দীর্ঘ সময় বাইক বন্ধ রাখলে ব্যাটারি অকেজো হয়ে পড়ে

একটি বাইক যদি দীর্ঘ সময় ব্যবহার না করা হয় তাহলে এর মধ্যে থাকা ব্যাটারি অচল হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনার বাইক স্টার্ট হবে না। লম্বা সময় ধরে বাইক বন্ধ রাখলে ব্যাটারি এভাবে নিস্তেজ হয়ে পড়ে।

অতএব, আপনার বাইক যদি দীর্ঘ সময় ধরে ব্যবহার না করার পরিকল্পনা থাকে, তাহলে বাইক থেকে ব্যাটারির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাখুন। এতে করে আপনার বাইকের ব্যাটারি অকেজো হওয়া থেকে নিরাপদ থাকবে। পরবর্তীতে এই ব্যাটারি আবার চার্জ করে ব্যবহার করা যাবে। যদি ব্যাটারি চার্জ করার পরও এর কার্যক্ষমতা কম মনে হয়, তাহলে নতুন ব্যাটারি ব্যবহার করুন।

  • বাইকের ব্রেকিং সিস্টেম জ্যাম হয়ে বাইকের সমস্যা দেখা দিতে পারে

দীর্ঘ সময় বাইক ব্যবহার না করলে ধুলোবালি জমে বাইকের ব্রেকিং সিস্টেম জ্যাম হয়ে যায়। সেক্ষেত্রে আপনার বাইক স্টার্ট করতে সমস্যা হবে। তবে, লুব্রিকেন্ট অয়েল লাগিয়ে ব্রেকগুলোকে আবারও সচল করা সম্ভব। এছাড়াও, অনেক সময় পর বন্ধ মোটরসাইকেল আবার চালু করতে গেলে বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হয়।

  • বাইকের ইঞ্জিনে পুরোনো তেলের স্লাজ জমাট বেঁধে যায়

যেসব গাড়ি কিংবা বাইক ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে ব্যবহার করা হয়নি, সেইসব বাহনের ইঞ্জিনে পুরোনো তেলের গাদ বা স্লাজ জমাট বেঁধে যায়। এমনটা হলে লক্ষ্য করবেন আপনার বাইকটি সহজে স্টার্ট হবে না। এই সমস্যা এড়াতে আপনার বাইক নতুন করে সার্ভিসিং করাতে হবে। বিশেষ করে পুরোনো তেল পরিবর্তন করে ভালো গ্রেডের নতুন ইঞ্জিন অয়েল ব্যবহার করতে হবে।

  • ফুয়েল ভাল্বের কার্যক্ষমতা কমে যায়

দীর্ঘ কয়েক মাস বা বছর বাইক না চালানোর ফলে ভাল্বে মরিচা পড়ে যায়। বাইকের ভাল্ব ক্ষয় হয়ে গেলে এর এলাইনমেন্ট নষ্ট হয়ে যাবে এবং এর কার্যক্ষমতা কমে যাবে। যার ফলে বাইক স্টার্ট করতে ঝামেলা হবে।

ফুয়েল ভাল্ব ইঞ্জিনের কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয়। তাই কোনো কারণে এটি ক্ষয় হলে আপনার ইঞ্জিন ভালো পারফর্ম করবে না। এমন সমস্যায় পড়লে, আপনার নিকটস্থ কোন অভিজ্ঞ মেকানিক দিয়ে মেরামত করিয়ে নেওয়া উত্তম।

  • ফুয়েল ট্যাংক ও অন্যান্য বাইক পার্টসগুলোতে ময়লা জমে জ্যাম হয়ে থাকে

বন্ধ মোটরসাইকেল দীর্ঘ দিন পর স্টার্ট করলে লক্ষ্য করবেন ফুয়েল ট্যাংক শুষ্ক অর্থাৎ তাতে থাকা তেল ফুরিয়ে গিয়েছে কিংবা ফুয়েল একদমই নেই। ফলে ইঞ্জিন সচল থাকবে না এবং বাইক স্টার্ট করা সম্ভব হবে না।

তাই ফুয়েল ট্যাংকে তেল আছে কি না তা অবশ্যই পরীক্ষা করে নিতে হবে। ট্যাংকে শুষ্ক হয়ে

গেলে নতুন করে তেল পরিবর্তন করতে হবে এবং ইঞ্জিন ভালো রাখতে উন্নত গ্রেডের অয়েল ব্যবহার করা আবশ্যক।

অন্যদিকে, যদি দীর্ঘ সময় বাইক চালানো না হয় তাহলে ফুয়েল ইঞ্জেক্টর্স, অয়েল ফিল্টার বা এয়ার ফিল্টারেও অতি মাত্রায় ময়লা আটকে জ্যাম হয়ে থাকে। দীর্ঘ সময় পর বাইক চালানোর সময় নানান সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন।

অতএব, বাইকের সর্বোত্তম পারফরম্যান্স নিশ্চিত করতে একবার সার্ভিসিং করিয়ে নেওয়া ভালো। বাইকের যেসব যন্ত্রাংশ দুর্বল হয়ে গেছে সেসব মেরামত করিয়ে নিতে হবে। বেশিদিন বাইক বন্ধ রাখলে এই রকম নানা বাইকের সমস্যা প্রায়ই দেখা দেয়।

  • দীর্ঘদিন বাইক বন্ধ রাখলে বাইকের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায় 

লম্বা সময় ধরে বাইক বন্ধ রাখলে বাইকের লুক খানিকটা ফ্যাকাসে দেখায়। আপনি চাইলে আপনার বাইকের আউটলুক পরিবর্তন করতে পারেন। আপনার বাইকের আউটলুকে নতুনত্ব আনতে পলিশ করানো প্রয়োজন।

বর্তমানে, বাইক পলিশ করার জন্য বাজারে নানা ধরণের ব্র্যান্ডেড পণ্য পাওয়া যায়। একবার পলিশ করালে বাইকের রঙ নতুনের মতো চকচকে দেখাবে। সেই সাথে,পলিশ করানোর পর আপনার বাইকে সহজে মরিচা পড়বে না।

বাইক দীর্ঘদিন বন্ধ রাখার ফলে বাড়তি যেসব সমস্যা দেখা দিতে পারে:

  • বাইকের RPM (আরপিএম) সঠিক না থাকলে বা কমে গেলে চলন্ত অবস্থায় বাইক বন্ধ হয়ে যেতে পারে।
  • কার্বুরেটরে অতিরিক্ত ময়লা জমে গেলে বাইক স্টার্ট করতে সমস্যা হতে পারে। 
  • দীর্ঘদিন বাইক বন্ধ রাখলে ফুয়েল ইঞ্জেক্টের জ্যাম হয়ে যেতে পারে। 
  • বাইকের ইঞ্জিনে ওভারহিটিং সমস্যা দেখা দিলে বাইক স্টার্ট করা মুশকিল হতে পারে।
  • লম্বা সময় ধরে বাইক বন্ধ রাখলে টায়ারের টেম্পার নষ্ট হয়ে যায়, যার ফলে বাইক চলাচলে সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে।
  • বাইকের বিভিন্ন অংশে মরিচা ধরে যেতে পারে।
  • বাইকের ইঞ্জিন থেকে অতিরিক্ত ধোয়া বের হতে পারে। 
  • দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা বাইকের ব্যাটারি থেকে কেমিক্যাল লিক করতে পারে।

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা মোটরসাইকেলের যত্ন নিতে কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস

আপনার বাইক দীর্ঘ সময় ধরে ফেলে রাখলে অনেক ধরণের সমস্যায় পড়তে পারেন।

এমতাবস্থায়,বাইক স্টার্ট না হওয়া, ইঞ্জিন সহ নানা যন্ত্রাংশ জ্যাম হয়ে যাওয়া বা ইঞ্জিন অয়েল শুকিয়ে যাওয়া, ইত্যাদি সমস্যার সম্মুখীন হওয়া স্বাভাবিক। 

 

দিনের পর দিন আপনার বাইক না চালিয়ে এভাবে ফেলে রাখলে, এমন সব অসুবিধা কম বেশি দেখা দিবেই। তবে আপনার বাইক যথাযথভাবে যত্নে রাখলে এসব সমস্যাগুলো অতিক্রম করা সম্ভব। 

আপনি অনেকদিন পর যখন আপনার বাইকটি চালানোর জন্য বের করবেন, তখন প্রথমে একবার ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিবেন। এরপর বাইকটি বেশ কিছু দিন চালিয়ে দেখবেন।

শুরুতে আপনার বাইক আগের মতন সচল থাকবে না, চালানোর সময় মনে হবে আপনার বাইক একটু আটকে যাচ্ছে। তবে নিয়মিত চালাতে থাকলে বাইকে জ্যামের সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

অন্যদিকে, বাইকের সমস্যা যদি অধিক বেড়ে যায়, সেক্ষেত্রে অভিজ্ঞ কোন মেকানিকের পরামর্শ নিতে হবে। প্রয়োজন হলে, বাইকের প্রতিটি পার্টসের সক্ষমতা পরীক্ষা করে নিতে পারেন। এর পাশাপাশি, ভালোভাবে সার্ভিসিং করিয়ে নেওয়া আপনার বাইকের জন্য উত্তম।

দীর্ঘদিন বাইক বন্ধ রাখলে ছোট বড় অনেক সমস্যা হতেই পারে, তবে এর সমাধানও রয়েছে। 

আপনার বাইকটির পারফরম্যান্স ঠিক রাখতে নিয়মিত বাইক চালান। বাইক ব্যবহারের পাশাপাশি অবশ্যই এটি সব সময় সযত্নে রাখুন।

২০২২ সালে মোটরসাইকেলের দরদাম বিস্তারিত জানতে Bikroy.com এর ব্লগ সাইটে।

কিছু জিজ্ঞাসা

১. দীর্ঘ সময় পর বন্ধ মোটরসাইকেল চালু করলে ব্যাটারির কি সমস্যা হতে পারে?

দীর্ঘ সময় পর বন্ধ মোটরসাইকেল হঠাৎ চালানোর চেষ্টা করলে ব্যাটারি অচল হয়ে যেতে পারে কিংবা ব্যাটারি থেকে কেমিক্যাল লিক করতে পারে।

 

২. দীর্ঘদিন বাইক বন্ধ রাখার পর বাইকের সৌন্দর্য কিভাবে ফিরিয়ে আনা যায়?

আপনার বাইকের আউটলুকে নতুনত্ব আনতে পলিশ করানো প্রয়োজন। এতে আপনার বাইক নতুন রূপে দেখা যাবে এবং সেই সাথে, আপনার বাইক মরিচার হাত থেকেও রক্ষা পাবে।

 

৩. ফুয়েল ট্যাংকে তেল শুকিয়ে গেলে বাইকের কি অবস্থা হয়?

বন্ধ মোটরসাইকেল দীর্ঘ দিন পর চালু করলে মাঝে মাঝে দেখা যায় ফুয়েল ট্যাংকটি শুষ্ক হয়ে গিয়েছে। এমনটা হলে, ইঞ্জিন সচল থাকবে না এবং বাইক স্টার্ট করা অসম্ভব হবে।

 

৪.বাইকের ব্রেকিং সিস্টেম জ্যাম হয়ে গেলে কি করা প্রয়োজন?

যখন দীর্ঘ সময় ধরে বাইক ব্যবহার না করা হয়, তখন ধুলোবালি জমে বাইকের ব্রেকিং সিস্টেম জ্যাম হয়ে যায়। সেক্ষেত্রে আপনার চালাতে সমস্যা হবে। তবে লুব্রিকেন্ট অয়েল লাগিয়ে ব্রেকগুলোকে আবারও সচল করা সম্ভব হবে।

 

৫. বাইকের পার্টসগুলোতে মরিচা পড়লে এর সমাধান কি হতে পারে?

ছয় মাস বা এর অধিক সময় পর যখন বাইক ব্যবহার করতে যাবেন তখন লক্ষ্য করবেন অধিকাংশ বাইকের পার্টসগুলোতে মরিচা পড়ে গিয়েছে বা জ্যাম হয়ে গিয়েছে। সাধারণত লম্বা সময় ব্যবহার না করার ফলে এমন সমস্যা সৃষ্টি হয়।

 

বাইকের কার্যকারিতা আগের মতো ফিরিয়ে আনতে যথাযথ সার্ভিসিং করানো আবশ্যক। এক্ষেত্রে, অভিজ্ঞ মেকানিকের সাহায্য নিতে হবে।

 

Similar Advices



Leave a comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.