Anuj Mishra’র Royal Enfield Classic 350 এর উপর করা রিভিউঃ এর সুবিধা ও অসুবিধা 

Anuj Mishra’র Royal Enfield Classic 350 এর উপর করা রিভিউঃ এর সুবিধা ও অসুবিধা 

২০২১ সালের সেপ্টেম্বর হতে রয়্যাল এনফিল্ড ক্লাসিক ৩৫০ আমার সাথে আছে। আমার রেগুলার পাঠকরা জানেন আমি এই বাইকটি কি পরিমাণ পছন্দ করি এবং কত আনন্দের সাথে আমি এই বাইকটি ব্যবহার করি। রেগুলার যাতায়াতের জন্য যেমন আমি এটি চালাই তেমনি কয়েকবার লং রাইডেও গিয়েছি পিলিওনসহ। যদিও আমি এই বাইকটি নিয়ে অনেকবার রিপোর্ট লিখেছি এবার আমি আলোকপাত করব এর কোন বিষয়গুলো আমি পছন্দ করেছি এবং কোন বিষয়গুলো আরও ভালো হতে পারত।

Royal Enfield Classic 350 চালানোর কয়েকটি সুবিধা 

দৃশ্যমান আবেদন

রয়্যাল এনফিল্ড ক্লাসিক ৩৫০ এর ভিনটেজ স্টাইল বহু বছর ধরে এর বিক্রি বাড়িয়ে আসছে। এর নতুন মডেলেও পাচ্ছেন লোভনীয় ডিজাইন, রাউন্ড হেড ল্যাম্প, রাউন্ড মিরর, বাদাম আকারের ফুয়েল ট্যাংক, ত্রিকোণাকার সিট প্যানেল, দুইটি মোটাসোটা সিট এবং একটি সুন্দর ডিজাইনের এক্সহস্ট। এর কালার ভ্যারিয়াণ্টগুলোও ক্রোমের কারণে আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে। 

মসৃণ ইঞ্জিন

আগের মত ক্লাসিক ৩৫০ এর মিরর এখন আর ঝাকি খায় না। এর নতুন যে প্ল্যাটফর্মের ৩৫০ সিসির ইঞ্জিন ১০০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায় বা তার চেয়ে বেশি স্পিডেও অনেক মসৃণ গতিতে চলবে। কাজেই হাইওয়েতে চালানোর সময় দারুণ এক্সপেরিএন্স পাবেন। এছাড়া এর গিয়ারবক্স শিফটিং এর সময়  দ্রুত সাড়া দেবে।

হ্যান্ডলিং

ক্লাসিকের নতুন ভার্সনে এর ওজন নিয়ে নতুনভাবে কাজ করা হয়েছে বিশেষ করে ফ্রন্টে ২ শতাংশ ওজন বৃদ্ধি পেয়েছে। এর ওজনকে নতুনভাবে বিন্যস্ত করে ফ্রন্টে ৪৬% এবং রিয়ারে ৫৪% করাতে এর ব্যালেন্সিং করা যাবে আরও দৃঢ়তার সাথে। সহজে নিয়ন্ত্রণের সক্ষমতা এই বাইকটিকে করেছে অনন্য।

Royal Enfield Classic 350 চালানোর কিছু অসুবিধা

বেশি ওজন

যদিও ১৯৫ কেজি ওজনের বাইকটি নিয়ন্ত্রণ করা সহজ তারপরও পার্কিং এর সময় কিংবা রাস্তায় ধীর গতিতে চলাচলের সময় একটু বেগ পেতে হতে পারে। খোদা না করুন যদি অসতর্কতাবশত পড়ে যান তাহলে একে তুলতে আরেকজনের সাহায্যের প্রয়োজন পড়তে পারে। এছাড়াও এর ফুট পেগের অবস্থান আপনার পায়ের পাতায় এবং আঙ্গুলে ব্যথা অনুভব করাতে পারে। 

দৃঢ় রাইড কোয়ালিটি 

এর রাইড কোয়ালিটি আরও একটু ভাল হতে পারত। যদিও সরু রাস্তায় সহজেই চালাতে পারবেন তবে চড়াইয়ে উঠতে গেলে পিঠে সামান্য ব্যথা অনুভব করতে পারেন।সিটটাও তেমন একটা পছন্দ হয়নি। ফোমটা আরও একটু মোটা না হওয়ার কারণে ২ ঘণ্টারও কম সময়ে আপনি পিঠে সামান্য ব্যথা অনুভব করতে পারেন।

তবে আপনি যদি সবসময় ট্যুরে যেতে পছন্দ করেন তবে রয়্যাল এনফিল্ড এর অফিসিয়াল এক্সেসরি ক্যাটালগ থেকে পছন্দমত সিট নিয়ে নিতে পারেন। তবে হ্যান্ডলিং, রাইড কোয়ালিটি এবং আরামের কথা চিন্তা করলে এই বাইকের জুড়ি মেলা ভার। সবশেষে বলতে চাই এর ক্লাচটি চাইলে আরও একটু নমনীয় করা যেত এবং ফ্রন্ট ডিস্কের ব্রেকটি আরও একটু উন্নত করলে ভাল হত।

মুল্যায়ন

ছোটোখাটো বিষয়গুলো বাদ দিলে এই বাইকটি তার আগের মডেলগুলোর চাইতে অনেক উন্নত হয়েছে। এই বাইকটিও রয়্যাল এনফিল্ডের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে। এর রেট্রো ডিজাইন , সুন্দর ডিজাইন, ইঞ্জিন পারফর্মেন্স সবকিছু মিলিয়ে এই বাইকটি চমৎকার। আপনি যদি বাজারে রেগুলার যাতায়াত ও ট্যুরের জন্য আদর্শ বাইক খুঁজে থাকেন তাহলে এই বাইকটি হতে পারে আপনার জন্য আদর্শ। 

নতুন বা পুরাতন বাইক কিনতে চাইলে ঘুরে আসুন Bikroy.com-এ। 

Similar Advices