৬ টি সহজ ধাপে মোটরসাইকেল চালানো শিখুন

৬ টি সহজ ধাপে মোটরসাইকেল চালানো শিখুন

আপনি কি মোটরসাইকেল চালানো শেখার পরিকল্পনা করছেন, কিন্তু কীভাবে শুরু করবেন তা বুঝতে পারছেন না? মোটরসাইকেল চালানো শেখা বেশিরভাগ লোকের ধারণার চেয়ে অনেক সহজ। মোটরসাইকেল চালানো শিখা শুরু করার জন্য আপনার জন্য বিশেষজ্ঞ স্তরের দক্ষতা প্রয়োজন নেই৷ মূলত, মোটরসাইকেল একটি ইঞ্জিন সহ সাইকেল, এবং যে কেউ এটি চালানো শিখতে পারে।

প্রকৃতপক্ষে, আপনি যদি সাইকেল চালাতে জানেন, তাহলে মোটরসাইকেল চালানো আপনার কাছে তেমন কঠিন কিছু নয়। কারন আপনি জানেন কিভাবে দুটি চাকার ভারসাম্য বজায় রাখতে হয় এবং মোটরসাইকেল চালানোর জন্য এই ভারসাম্য বজায় রাখাটাই মূল চাবিকাঠি। পরবর্তীতে, আপনাকে শিখতে হবে কীভাবে গিয়ার এবং গতি নিয়ন্ত্রণ করতে হয়, কীভাবে টার্ন এবং ব্রেক করতে হয় এবং কীভাবে নিরাপদে রাইড করা শিখতে হয়। তবে আপনি যদি সাইকেল চালিয়ে না থাকেন তবে চিন্তা করবেন না, ব্যালেন্স আয়ত্ত করতে বেশি সময় লাগে না।

এই আর্টিকেলে, আমরা আপনাকে কীভাবে মোটরসাইকেল চালাতে হয় তার ছয়টি সহজ ধাপ সম্পর্কে বলবো। এছাড়াও মোটরসাইকেল নিরাপত্তা মূল বিষয়গুলো সম্পর্কে অবগত করবো এবং কিভাবে মোটরসাইকেল নিরাপত্তা নেভিগেট করতে হয় সেই ব্যাপারে সহায়তা করবো।

নতুনদের জন্য মোটরসাইকেল চালানো শিখার ৬ টি সহজ ধাপ

আপনি যদি মোটরসাইকেল শিখার ক্ষেত্রে একদম নতুন হয়ে থাকেন তবে প্রথম প্রথম কিছুটা ভয় লাগতে পারে যা একদম স্বাভাবিক। কারন আপনি একা নন বেশিরভাগ নতুন রাইডারদেরই প্রথম দিকে মোটরসাইকেল সম্পর্কে কিছুটা ভীতি কাজ করে।

তবে ভয়কে বেশি একটা গুরুত্ব দেওয়া যাবে না। বাইক চালানো শেখা প্রক্রিয়াটি খুবই মজার! বেসিক বিষয়গুলো একবার আয়ত্ত করে নিতে পারলে, মোটরসাইকেল চালানোর আনন্দ পেতে শুরু করবেন। এখানে আমরা ৬ টি ধাপ সম্পর্কে আলোচনা করবো যাতে আপনি সহজেই মোটরসাইকেল চালানো শিখতে পারেন।

ধাপ ১: আপনার পছন্দসই একটি মোটরসাইকেল বেছে নিন

মোটরসাইকেল কিনার আগে ঠিক করে নিন আপনি কি উদ্দেশ্যে মোটরসাইকেল্টি কিনছেন। অর্থাৎ আপনি যদি শুধুমাত্র দৈনন্দিন কাজের জন্য মোটরসাইকেল কিনতে চান তবে আপনার উচ্চতা এবং ওজনের সাথে সামঞ্জস্য রেখে মোটরসাইকেল কিনা উচিত। এতে আপনি সহজেই আপনার মোটরসাইকেলটির ভারসাম্য আয়ত্ত করতে পারবেন। এই মুহুর্তে অবশ্য মডেল খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়। একজন শিক্ষানবিস হিসেবে প্রথমবারের মতো মোটরসাইকেল চালানো শিখছেন, আপনার এমন মোটরসাইকেল বাছাই করে নেওয়া উচিত যা হালকা এবং পরিচালনা করতে সহজ হয়। পরবর্তীতে আপনি এক্সপার্ট হওয়ার সাথে সাথে আরো বড় এবং আপডেটেড মডেলের মোটসাইকেল চালাতে পারবেন। আপাতত, কম, হালকা এবং ২৫০ থেকে ৬৫০ সিসি এর মধ্যে কিছু বেছে নিন।

যাইহোক, কিনার সময় আগে আপনার পছন্দের মোটরসাইকেলে বসার চেষ্টা করে দেখুন এটি কম্ফোরটেবল কিনা এবং দেখুন আপনি আরামে দুই পা নীচে রাখতে পারেন কিনা। বাইকটির ভারসাম্য রাখতে পারছেন কিনা? সহজেই উঠতে, নামতে এবং পাশের স্ট্যান্ডে রাখা যাচ্ছে কিনা? এবং আপনি যে অবস্থানে বসে আছেন তা আপনার জন্য সুবিধাজনক কিনা? এই ব্যাপারগুলো খেয়াল রাখুন।

এইভাবে, মোটরসাইকেল চালানোর মূল বিষয়গুলি আপনার কাছে অনেক বেশি স্বাভাবিক হয়ে আসবে। মনে রাখবেন, মোটরসাইকেলের ভারসাম্য বজায় রাখাটাই মূল বিষয়।

ধাপ ২: গিয়ার আপ করুন

প্রথমেই যেই বিষয়টি আপনাকে আয়ত্ত করতে হবে তা হলো মোটরসাইকেলের গিয়ার। প্রত্যেকটি মোটরসাইকেলেই একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ঝুঁকি থাকে। এটি সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করবে আপনি কতোটা সম্ভব ঝুঁকি কমাতে পারবেন। যেকোনো দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে সুরক্ষিত থাকার জন্য আপনাকে অবশ্যই সঠিকভাবে মোটরসাইকেলের গিয়ার আপ করা প্রয়োজন হবে।

যদি আপনি প্রথমবারের জন্য মোটরসাইকেল চালানোর চেস্টা করেন তাহলে প্রথমেই গিয়ার আপ করুন। এবং এর সাথে হেলমেট, গ্লাভস, শক্ত বুট, প্যান্ট এবং জ্যাকেট পরুন।

ধাপ ৩: বাঁক সম্পর্কে জানুন

আপনি যখন মোটরসাইকেল চালানো শিখছেন তখন সেটার নিয়ন্ত্রণ আয়ত্ত করা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। একবার আপনি যদি এটি আয়ত্ত করে ফেলতে পারেন, তবে, আপনি বাকি মৌলিক বিষয়গুলি শিখতে সময় লাগবে না। মনে রাখবেন, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিসগুলির মধ্যে একটি হচ্ছে বাঁক। একটি সোজা রাস্তায় বাইক চালানো এক জিনিস, কিন্তু পার্কিং লটের কোণার, U-টার্ন করানো একটু কঠিন।

বাইকটিকে স্থির এবং কোনো জায়গায় স্থিতিশীল রাখতে, শুধুমাত্র আপনার হ্যান্ডেলবারগুলিকে ঘুরানোর উপর নির্ভর করবেন না। আপনি একটি কোণকে কেন্দ্র করে বৃত্তাকার পথে ঘুরার সময় বাইকটি কিছুটা ঝুঁকে পড়বে এবং আপনাকে এটির সাথে ঝুঁকতে হবে।

মনে রাখবেন, আপনার থ্রোটল স্থির রাখতে এবং যেখানে যাচ্ছেন সেদিকে সর্বদা নজর রাখবেন। আপনি যদি আপনার সামনের টায়ারের দিকে তাকাতে থাকেন, তাহলে আপনি ভারসাম্য হারিয়ে ফেলবেন। কোনার দিকে লক্ষ্য রাখবেন এতে আপনি ভারসাম্য বজায় রাখতে পারবেন।

ধাপ ৪: ব্রেক করতে শিখুন

এখন যেহেতু আপনি আপনার মোটরসাইকেলে বসে আছেন, এটি চালানোর সময় এসে গেছে। কিন্তু মোটরসাইকেল চালানো শুরু করার আগে, আপনাকে ব্রেক করতে জানতে হবে। আপনার ডান পাশের প্যাডেলটি পিছনের ব্রেক এবং আপনার ডান হাতলবারের লিভারটি আপনার সামনের ব্রেক৷ গতি কমাতে বা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করতে, উভয় ব্রেক সমানভাবে ব্যবহার করুন।

এবং সর্বদা নিশ্চিত করুন যে আপনি পিছনের ব্রেকটিতে পা রাখছেন এবং সামনের ব্রেক লিভারটি আস্তে আস্তে এবং ধীরে ধীরে টানছেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, ব্রেকগুলি কখনই ধরে রাখবেন না বা বন্ধ করে দিবেন না, কারণ এতে চাকাগুলির উপর থেকে আপনি ভারসাম্য হারিয়ে ফেলতে পারেন।

পিছনের ব্রেক প্যাডেলটি আলতোভাবে চাপুন এবং বাইকটিকে থামানোর পরিবর্তে একটি নিয়ন্ত্রিত, মসৃণ ব্রেকিংয়ে দক্ষতা অর্জন করার জন্য সামনের ব্রেক লিভারটি ধীরে ধীরে টানুন। বাইকটি দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় আপনার ব্রেকিং অনুশীলন করুন। একটু সামনের দিকে ঘুরুন, তারপরে এটির অনুভূতি পেতে পিছনের ব্রেকটি আলতো চাপুন। আপনার সামনের ব্রেক দিয়ে এটি পুনরায় করুন এবং সেই জায়গাটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন যেখানে ব্রেকগুলি জড়িত কিন্তু হঠাৎ করে চাকার ডিস্কগুলি না ধরতে পারে।

ধাপ ৫: ক্লাচ এবং থ্রোটল

এতক্ষণে নিশ্চয়ই আপনি ব্রেকিং সম্পর্কে মোটামুটি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছেন। এখন আপনার বাইক চালু করার এবং নিয়ন্ত্রণগুলি শিখার সময়। যাই হোক গিয়ার শিফটিং করা নতুন রাইডারদেরকে সবচেয়ে বেশি আতঙ্কিত করে। কিন্তু বাস্তবতা হল, কীভাবে শিফট করতে হয় তা শেখা অনেক সহজ। মোটরসাইকেলে সাধারণত পাঁচটি গিয়ার থাকে; প্রথম গিয়ার নিচে, এবং নিউট্রাল শিফট করার পর দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, এবং পঞ্চম।

গিয়ারগুলিকে সংযুক্ত করার জন্য, আপনাকে ক্লাচ লিভারটি ভিতরে টেনে আনতে হবে৷ মোটরসাইকেল মুভমেন্ট শুরু করার জন্য ক্লাচ লিভারটি টেনে আনুন, প্রথম গিয়ারটি নিযুক্ত করুন, তারপরে একই সময়ে ক্লাচটি ছেড়ে দেওয়ার জন্য থ্রটলটি আলতোভাবে রোল করুন।

বাইকটি চলতে শুরু করলে, অল্প অল্প থ্রোটল যোগ করার সময় আস্তে আস্তে ক্লাচটি বের হতে দিন। একবার আপনি উচ্চতর RPM-এ পৌঁছে গেলে, ক্লাচ লিভারটি সম্পূর্ণরূপে টেনে আনুন। এরপর থ্রটলটি বন্ধ করুন এবং দ্বিতীয় গিয়ারটি নিযুক্ত করুন। গতি কমানোর জন্য, আপনি প্রথম গিয়ারে না আসা পর্যন্ত নিচে নামুন, তারপর আপনি থামার পরে নিরপেক্ষভাবে টানুন।

ধাপ ৬: অনুশীলন করুন

একজন নতুন রাইডার হিসাবে, আপনাকে যতটা সম্ভব অনুশীলন করতে হবে। তবে ধীরে ধীরে এই ধাপগুলো অনুশীলন করুনঃ প্রথমে ফাকা দুই লেনের রাস্তায় রাইড করুন এবং হাইওয়ে ঢুকার আগে নিরাপদে ট্র্যাফিক নেভিগেট করার অনুশীলন করুন। আপনি যত বেশি বাইক চালাবেন, তত বেশি আপনি আপনার বাইকটি সম্পর্কে জানতে পারবেন।

একবার নিয়ন্ত্রন করাটা আয়ত্ত করে ফেলতে পারলেই সব ধরণের রাস্তা এবং ট্র্যাফিক পরিস্থিতিতে আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী বোধ করবেন। তবে মনে রাখবেন এক্সপার্ট না হওয়া পর্যন্ত ব্যস্ত ট্র্যাফিক বা হাই-স্পিড ফ্রিওয়েতে যাবেন না। মোটরসাইকেল ধীর গতিতে চালান, আপনার দক্ষতা বাড়ান এবং যতটা সম্ভব রাইড উপভোগ করুন।

মোটরসাইকেল চালানো শিখতে কতদিন সময় লাগে?

এই প্রশ্নের কোনো নির্দিষ্ট উত্তর নেই, কারণ প্রত্যেকে আলাদাভাবে এবং তাদের নিজস্ব গতিতে শিখে। কিছু লোক এক দিনে মোটরসাইকেল চালানো শিখতে পারে, অন্যরা কয়েক দিন বা এমনকি সপ্তাহও নিতে পারে। আপনি যদি মনে করেন যে আপনার আরও বেশি সময় লাগতে পারে, তবে এতে কোনো সমস্যা নেই। শেখার প্রক্রিয়ায় তাড়াহুড়ো না করাই ভালো। সময় নিয়ে শিখুন এবং ধীরে ধীরে এক্সপার্ট হয়ে উঠুন।

এছাড়া মনে রাখবেন যে, আপনার মোটরসাইকেল লাইসেন্স পাওয়ার অর্থ এই নয় যে আপনি এখন একজন বিশেষজ্ঞ রাইডার। এমনকি আপনি যখন লাইসেন্স পাওয়ার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে গেলেও অনেক কিছু শেখার বাকি থাকে। আপনি যখন বিভিন্ন রাস্তায় যাবেন, ট্র্যাফিক এবং আবহাওয়ার পরিস্থিতির মুখোমুখি হবেন, তখন এই ব্যাপার গুলো সম্পর্কে আরো শিখতে পারবেন। তাই সর্বদা সতর্ক থাকুন, নিরাপদে রাইড করুন৷ দক্ষতা এবং আত্মবিশ্বাস ধীরে ধীরে সময় এবং মাইলেজের সাথে আসবে।

শেষকথা

আমাদের দেশে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার সংখ্যা অনেক বেশি তাই নিরাপদে মোটরসাইকেল চালানো শেখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাইক চালানোর সময় সর্বদা প্রতিরক্ষামূলক গিয়ার পরিধান করুন এবং নিরাপদ, নিয়ন্ত্রিত উপায়ে শিখতে একটি MSF কোর্স নিন।

একবার আপনি আপনার লাইসেন্স পেয়ে গেলে এবং নিজে থেকে রাইডিং শুরু করলে, বেশি বেশি অনুশীলন করা শুরু করুন। এবং আপনার দক্ষতার বাইরে যেয়ে বাইক চালানোর চেষ্টা করবেন না বা দ্রুত রাইডারদের সাথে তাল মিলিয়ে চলার চেষ্টা করবেন না। সময় এবং অনুশীলনের সাথে গতি এবং দক্ষতা আসবে। আপাতত, আপনি যতটা পারেন সময় দিন। এছাড়া রাতেরবেলা বা বৈরী আবহাওয়ায় রাইডিং এড়িয়ে চলুন। এবং যতক্ষণ না আপনি আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠছেন ততক্ষণ পর্যন্ত আপনার দক্ষতা বাড়ান।

Similar Advices