Aprilia Cafe 150 রিভিউ, ফিচার ও দাম

07 Mar, 2023
Aprilia Cafe 150 রিভিউ, ফিচার ও দাম

বাংলাদেশের রুচিশীল মানুষদের মধ্যে ক্ল্যাসিক ডিজাইনের বাইকের চাহিদা সবসময়ই রয়েছে। ক্যাফে রেসার ও স্ক্র্যাম্বলার টাইপের বাইক আমাদের দেশে দুর্লভ, কিন্তু এগুলোর আবেদন রুচিশীল মানুষের কাছে অন্যরকম। আর তাই, হাজারো স্ট্যান্ডার্ড আর স্পোর্টস বাইকের ভিড়ে গ্রাহকদের মন কেড়েছে এমনই একটি বাইক, এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ রিভিউ। আজ আমাদের আলোচনায় থাকছে এই নজরকাড়া ও দারুণ পারফর্ম্যান্সের বাইকটি।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সাইকেল বানানো মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে এপ্রিলিয়া। এই ইতালিয়ান কোম্পানিটি এরপর স্কুটার, স্বল্প ক্যাপাসিটির মোটরসাইকেল তৈরি করা শুরু করে আর ধীরে ধীরে উচ্চ মানের হাই ক্যাপাসিটি মোটরসাইকেলও একসময় বানিয়ে ফেলে। বাংলাদেশে এই ব্র্যান্ডের বাইক বাজারজাত হয়েছে রানার অটোমোবাইল লিমিটেডের হাত ধরে। Apilia Cafe রিভিউ ১৫০ সিসির বাইকটি বাংলাদেশে প্রথম লঞ্চ হয় ২০২০ সালে। চলুন দেখে নেই এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দাম ও এর বিভিন্ন রকম ফিচারের বিস্তারিতঃ

 

Aprilia Cafe রিভিউ – বিভিন্ন ফিচারের বিবরণ

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ ফিচার-মূল বৈশিষ্ট্য

বাইকের নাম এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০
বাইকের ধরণ ক্যাফে রেসার বাইক
ইঞ্জিন ক্ষমতা (সিসি) ১৫০
ইঞ্জিনের ধরণ ৪ স্ট্রোক, লিকুইড কুলিং, ডিওএইচসি, সিঙ্গেল সিলিন্ডার
ব্রেকিং সাধারণ ব্রেক
এবিএস নেই
সর্বোচ্চ শক্তি (হর্স পাওয়ার) ১৭.৭ বিএইচপি @ ৯৭৫০ আরপিএম
সর্বোচ্চ শক্তি (টর্ক) ১৪ এনএম @ ৭৫০০ আরপিএম
মাইলেজ ৪০ কিলোমিটার/লিটার (আনুমানিক)
টপ স্পিড ১২০ কিলোমিটার/ঘন্টা (আনুমানিক)
স্টার্ট ইলেকট্রিক
গিয়ারের সংখ্যা
ক্লাচ টাইপ ওয়েট মাল্টিপ্লেট
সাসপেনশন (সামনে) টেলিস্কপিক ইউএসডি
সাসপেনশন (পেছনে) মনোশক
টায়ারের ধরণ টিউবলেস
সামনের টায়ারের সাইজ ১০০/৮০ – ১৭
পিছনের টায়ারের আকার ১৩০/৭০ – ১৭
জ্বালানি ট্যাঙ্কের ধারণ ক্ষমতা ১২.৭ লিটার
ইঞ্জিন কুলিং লিকুইড কুলিং
জ্বালানি সাপ্লাই ইলেকট্রিক ফুয়েল ইনজেকশন

Aprilia Cafe রিভিউ– বর্তমান দাম

আকর্ষণীয় রঙ ও প্রিমিয়াম স্ক্র্যাম্বলার ডিজাইনের অপশনে লেটেস্ট ফিচারসমৃদ্ধ ১৫০ সিসির এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দাম বাংলাদেশের বর্তমান বাজারে ১,৭০,০০০ টাকা মাত্র।

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ রিভিউ – আউটলুক ও সাইজ

Aprilia Cafe ১৫০ সিসির বাইকটি দারুণ স্টাইলিশ এবং প্রিমিয়াম আউটলুকের সাথে স্ক্র্যাম্বলার ডিজাইনের এক অনন্য সমন্বয়। গঠনগত দিক থেকে এপ্রিলিয়া ক্যাফে একটি খাটো গড়নের মোটরসাইকেল। এর সিট হাইট ৭৭০ মিমি, যা যথেষ্ট পরিমাণে নিচু, কিন্তু গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স হিসেবে অন্যান্য বাইকের মত ১৬০ মিমি জায়গা রাখা হয়েছে। বাংলাদেশের বেশিরভাগ শহুরে রাস্তায় এই ক্লিয়ারেন্স পর্যাপ্ত হলেও পাহাড়ী এলাকায় অথবা বেশি খারাপ রাস্তায় সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। ১২.৭ লিটার জ্বালানি ধারণক্ষমতার এই বাইকে লং ট্যুর দিতে খুব একটা সমস্যা হওয়ার কথা না, তবে ট্যাংকের দিকে খেয়াল রেখে রিফিল করার জায়গা পরিকল্পনা করে নিতে হবে আগে থেকেই।

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দামের তুলনায় বাইকটি সাইজের দিক থেকে বেশ বড়সড়। এই মোটরসাইকেলের উচ্চতা ১১০০ মিমি, দৈর্ঘ্য ২০২২ মিমি, এবং প্রস্থ ৮২০ মিমি। ১২২ কেজি ওজনের এই বাইকটি ১৫০ সিসি সেগমেন্টের মধ্যে অন্যতম হালকা ওজনের বাইকের দলে পড়ে। ক্যাফে রেসার ধরণের এই বাইকটির হুইলবেইজ ১৩৩৫ মিমি; যা কর্ণারিং করার সময় বাইকটিকে যথেষ্ট পরিমাণে কাত হয়েও ব্যালেন্স ধরে রাখতে সহায়তা করে।

Aprilia Cafe রিভিউ– গঠনগত বৈশিষ্ট্য

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ রিভিউ অনুযায়ী স্ক্র্যাম্বলার ডিজাইনের এই বাইকটি বেশ অন্যরকম স্টাইলে সুন্দর ভাবে ডিজাইন করা হয়েছে। বাইকটির সামনের সাসপেনশন সামান্য ঢালু করে দেয়া। স্ক্র্যাম্বলার বাইকের ধারা বজায় রেখে এর এক্সহস্টটি কিছুটা উঁচু করে বসানো হয়েছে। বাইকটির পাইপ হ্যান্ডেলবার দু’টি একটু উঁচু ও খাঁড়া রাখা হয়েছে, যাতে করে এই বাইক নিয়ে স্ক্র্যাম্বল করতে রাইডারের কোনো সমস্যা না হয়। এছাড়াও এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০-এর ট্যাংকের দুই পাশে এয়ার স্কুপ দেয়া হয়েছে। আর তাই বাইকটির রেডিয়েটরে আরো বেশি বাতাস চলাচল করতে পারে, এবং দ্রুত ঠান্ডা হয়।

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ রিভিউ – ইঞ্জিনের পারফর্ম্যান্স

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ ফিচার হিসেবে ১৫০ সিসির এই বাইকটির সিঙ্গেল সিলিন্ডার, ৪-স্ট্রোক, এসওএইচসি টাইপের ইঞ্জিন বেশ শক্তিশালী। ১৪৯.২ ডিসপ্লেসমেন্টের এই বাইকের ইঞ্জিন থেকে ৯৭৫০ আরপিএম-এ ১৭.৭ বিএইচপি সর্বোচ্চ স্পিড এবং ৭৫০০ আরপিএম-এ ১৪ এনএম সর্বোচ্চ টর্ক পাওয়া যাবে। এই রেঞ্জের অন্যান্য বাইকের তুলনায় এপ্রিলিয়া ক্যাফের পাওয়ার ও টর্ক যথেষ্ট বেশি। গড়ে এই ইঞ্জিন থেকে প্রতি লিটারে প্রায় ৪০-৪৫ কিমি পর্যন্ত মাইলেজ পাওয়া সম্ভব।

Aprilia Cafe রিভিউ– ট্রান্সমিশন

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দামের বিচারে ৬ স্পিডের গিয়ারবক্স থাকায় বাইকটির ট্রান্সমিশনে বেশ ভালো পারফর্ম্যান্স পাওয়া যায়; অর্থাৎ ওভারটেকিং করার সময় ডাউনশিফটিং-এর পাওয়ার পাচ্ছেন অনেক বেশি। এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ বাইকে রয়েছে একটি বেসিক ওয়েট মাল্টিপ্লেট ক্লাচ, যা এর ট্রান্সমিশনে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ ফিচার হিসেবে বিভিন্ন আধুনিক প্রযুক্তির মেলবন্ধন ঘটায় এই বাইকটির এক্সিলারেশন দারুণ এবং নিমেষেই এর সর্বোচ্চ গতি আনুমানিক ১২০ কিমি প্রতি ঘন্টা পর্যন্ত উঠতে পারে।

Aprilia Cafe রিভিউ– ব্রেক ও সাসপেনশন

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ রিভিউতে উল্লেখযোগ্য যে, এই বাইকে দেয়া হয়েছে একটি ডুয়াল ডিস্ক কম্বিনেশনের ব্রেক। বাইকটির সামনের চাকায় রয়েছে একটি ৩০০ মিমি ডিস্ক ব্রেক, যা হচ্ছে রেডিয়ালি মাউন্ট করা একটি ডুয়াল ক্যালিপার। আমাদের দেশে রেডিয়াল মাউন্ট করা ক্যালিপার খুবই কম দেখা যায়। যত বেশি মাইল বাইকটি চালানো হবে, ততই এর ব্রেকিং পারফর্ম্যান্স আরো ভাল হবে। এপ্রিলিয়া ক্যাফে বাইকটির পেছনে দিকে ব্যবহার করা হয়েছে ২০০ মিমি-এর একটি ডিস্ক ব্রেক। বলতে পারেন, এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ ফিচারের মধ্যে সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর দিক হচ্ছে এর ব্রেকগুলো।

এপ্রিলিয়া ক্যফে ১৫০ দামের বিবেচনায় এর সাসপেনশনগুলো বেশ ভালো। সামনের দিকে একটি টেলিস্কপিক ফোর্ক সেট-আপ, আর পেছনে একটি মনোশক সাসপেনশন ব্যবহার করা হয়েছে। সামনের টেলিস্কপিক ফোর্কগুলো রাস্তায় বেশ ভালো পারফর্ম্যান্স দিবে আশা করা যাচ্ছে। আর মনোশক সাসপেনশন তো সবসময়ই ভালো। কর্ণারিং-এর সময় বাইকটির ব্যালেন্স বেশ ভালো থাকবে। ঢাকার মত বিভাগীয় ব্যস্ত শহর এবং হাইওয়ে, সব জায়গাতেই ভালোভাবে পারফর্ম করার মত সাসপেনশন বাইকটিতে দেয়া হয়েছে।

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ রিভিউ– চাকা

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দামের বিবেচনায় বাইকটিতে দেয়া হয়েছে অ্যালয় রীমের চাকা। সামনের চাকার মাপ হচ্ছে ১০০/৮০-১৭ এবং পেছনের চাকা ১৩০/৭০-১৭। ১৫০ সিসির বাইক হিসেবে এর চাকাগুলো বেশ ভালো। ইমারজেন্সি ব্রেক অথবা কর্ণারিং করার সময় বেশ ভালো সাপোর্ট দিতে সক্ষম ১৩৩৫ মিমি হুইলবেইজের এই চাকাগুলো।

Aprilia Cafe রিভিউ– ইলেকট্রিক্যাল প্যানেল ও ফিচার

Aprilia Cafe রিভিউয়ের পরবর্তী অংশ বাইকটির ইলেকট্রিক্যাল প্যানেল নিয়ে, যা ডিজিটাল ও এনালগ দুই রকম মিটারের সমন্বয়ে তৈরি। এনালগ স্পিডোমিটার, ওডোমিটার, ডিজিটাল আরপিএম মিটার ইত্যাদি এর ইলেকট্রিক্যাল প্যানেলের মূল বৈশিষ্ট্য। এছাড়াও এতে রয়েছে প্রয়োজনীয় প্রায় সব ধরণের ইন্ডিকেটর। ক্যাফে ১৫০-এর ওডোমিটারটি বেশ মিনিমালিস্ট ডিজাইনে তৈরি, যার দরুন বাইকটির সামনের দিকটা বেশ পরিচ্ছন্ন এবং স্মার্ট দেখায়।

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দামের বিচারে বাইকটির সামনে, পেছনে এবং সাইডে, সবদিকে হ্যালোজেন লাইটের ব্যবহার করা হয়েছে। বাইকের হেডলাইটটি হ্যালোজেন, সাথে রয়েছে প্রশস্ত রিফ্লেকটর। টেইল-লাইটটিও হ্যালোজেন, যা বেশ মিনিমালিস্ট ডিজাইনের এবং সরু। এছাড়াও বাইকের ইনডিকেটরগুলো তীর চিহ্নের আকৃতির, আর এগুলোও হ্যালোজেন লাইট।

এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ রিভিউ– কালার অপশন

Aprilia Cafe বাইকটির কালার অপশনগুলো একে অপরের বেশ কাছাকাছি, শুধুমাত্র ডিক্যালের রঙগুলো ভিন্ন, বাকি সবকিছুই একই রকম লাগে তিনটি অপশনেই। এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ ফিচার হিসেবে এর কালার অপশনগুলো দৃষ্টিনন্দন। বাংলাদেশে বাইকটির তিনটি কালার অপশন পাওয়া যাচ্ছে, যেগুলো হলো- লাল, সাদা ও কালো। তিনটি অপশনেই ইঞ্জিনের পাশে সুন্দর লাল রঙের ফ্রেম দিয়ে ডিটেইলিং করা হয়েছে।

Aprilia Cafe রিভিউ– বাইকটি কাদের জন্য ভালো?

ক্যাফে রেসার টাইপের Aprilia Cafe রিভিউ অনুযায়ী দারুণ স্টাইলিশ এই বাইকটি স্ক্র্যাম্বলার লাভারদের পছন্দের রাইড। নতুন ও অনভিজ্ঞ রাইডারদের জন্য এই বাইক আমরা আপাতত এড়িয়ে যেতে বলবো। অ্যাডভেঞ্চার-প্রেমী তরুণ রাইডারর খুব সহজেই এই বাইকের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে যান। কিছুদিন পরপরই লং রাইডে বেরিয়ে পড়েন, এমন ভাইদের জন্যও এই বাইকটি দারুণ।

সাধারণভাবে, এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ বাইকটি বেশ সুদর্শন, চটপটে এবং একটি সরল স্ক্র্যাম্বলার বাইক। বাংলাদেশে স্ক্র্যাম্বলার বাইকের সংখ্যা খুবই কম, তাই বলাই বাহুল্য, এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ বাইকটির উপর মানুষের প্রত্যাশা অনেক। আর বাইকটি এই প্রত্যাশার ভার খুব সহজেই সামলে নিয়েছে। সোজা কথায়, এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দামের সাপেক্ষে বেশ প্রশংসনীয় একটি স্ক্র্যাম্বলার বাইক।

Aprilia is an Italian Motorcycle Brand that is owned and managed by Piaggio & C. SpA (Italy). This is one the most renowned Italian motorcycle brands, and it has been in existence for over a century. Presently, the company operates globally representing many models of motorcycles. They also have a beautiful presence in the international motorcycle sports.

Aprilia Cafe150, a scrambler designed in this way. The front suspension of the bike is slightly slanted. As all scramblers must have, the exhaust is elevated. To make it easy to scramble the bike, the handlebars have been made high and straight. There are air scoops at the sides of the tank that allow more air to flow towards the radiator.

Aprilia Cafe 150 has a very informative instrument cluster. The instrument cluster includes an odometer (speedometer), an odometer, a fuel gauge, an analog RPM counter, and other useful indicators. The front is given a clean, minimalistic look by the design of the odometer.

All sides, front, and rear are equipped with halogen lighting. A halogen unit equipped with large reflectors is the headlight. The taillight, a halogen, is slim and minimalistic. The indicators of the bike have an arrowhead shape and halogen units.

Aprilia Cafe150 has a single-cylinder engine with a 4-stroke and 150cc motor. This bike’s engine is water-cooled and fuel-injected. The engine generates around 18BHP @ 9750 rpm, and 14 Nm of torque @ 7500 rpm. It is quite powerful compared to other bikes in the same range. The average mileage is between 40 and 45 kmpl.

Aprilia Cafe150 also features a basic multi-plate wet clutch system. There are six gears in the transmission. This means that the power required to downshift during overtaking will be greater. It is predicted to reach speeds around 120 kmph.

Aprilia Cafe 150 Price in Bangladesh Aprilia Cafe 150 Price in Bangladesh

The official price of Aprilia Cafe 150 in Bangladesh is ৳170,000. However, you should check the final price of the bike with the dealer.

Aprilia Cafe 150 Pros সুবিধা

  • প্রিমিয়াম মানের স্ক্র্যাম্বলার ডিজাইন
  • সাসপেনশন
  • শক্তিশালী ইঞ্জিন
  • সামনের ব্রেক

Aprilia Cafe 150 Cons অসুবিধা

  • এবিএস কিংবা সিবিএস নেই
  • গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স কিছুটা কম

What's new Aprilia Cafe 150- নতুন বৈশিষ্ট্য

  • সম্পূর্ণ হ্যালোজেন লাইটিং
  • আকর্ষণীয় স্ক্র্যাম্বলার ডিজাইন
  • দুর্দান্ত ব্রেকিং দক্ষতা

এক্সপার্ট অপিনিয়ন

7

Out of 10

ক্ল্যাসিক ডিজাইনের বাইকগুলো সবসময়ই স্পেশাল, কেননা এগুলো মানুষের মনে জায়গা করে আছে অনেক বছর ধরে। ক্যাফে রেসার ও স্ক্র্যাম্বলার টাইপের ক্লাসিক বাইকের চাহিদা আমাদের দেশের রুচিশীল মানুষদের মধ্যে ব্যাপক। আর ১৫০ সিসির Aprilia Cafe বাইকটি এই চাহিদার এক দারুণ সমাধান। বাংলাদেশে স্ক্র্যাম্বলার বাইক যেখানে নেই বললেই চলে, সেখানে দারুণ সুন্দর আর দুর্দান্ত পারফর্ম্যান্সের এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ বাইকটি খুব সহজেই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ১০০-১৫০ সিসির মধ্যে বাংলাদেশে এপ্রিলিয়া বাইকের মূল্য জানতে হলে চোখ রাখুন দেশের সেরা মোটরবাইক মার্কেটপ্লেস Bikroy.com-এ।

Aprila Cafe 150 Video Review


07 Mar, 2023 - স্ক্র্যাম্বলার ডিজাইনের দারুণ সুন্দর, হাই পারফর্ম্যান্স বাইক, নানা ফিচারে ভরা Aprilia Cafe রিভিউ। জানুন এপ্রিলিয়া ক্যাফে ১৫০ দাম ও আকর্ষণীয় সব ফিচার সম্পর্কে।

Aprilia Cafe 150 সম্পর্কে জিজ্ঞাসা

Aprilia Cafe 150 কেমন ধরণের বাইক?

Aprilia Cafe 150 ক্যাফে রেসার বাইক

What is mileage of Aprilia Cafe 150?

Aprilia Cafe 150 has a mileage of 40 Kmpl (Approx)

What is the Top Speed of Aprilia Cafe 150?

Aprilia Cafe 150 has a top speed of 120 Kmph (Approx)

What is the price of Aprilia Cafe 150?

The price of Aprilia Cafe 150 is BDT 1,70,000

What is the maximum engine power of Aprilia Cafe 150?

Aprilia Cafe 150 has a maximum power of 17.7 Bhp @ 9750 RPM

Aprilia Cafe 150 স্পেসিফিকেশন

বাইকের নাম

Aprilia Cafe 150

বাইকের ধরন

Cafe Racer

ইঞ্জিনের ধরন

4-Stroke, Liquid-Cooled, DOHC, Single Cylinder

ইঞ্জিন ক্ষমতা (সিসি)

149.2

ইঞ্জিন কুলিং

Liquid-Cooled

সর্বোচ্চ শক্তি (হর্স পাওয়ার)

17.7 Bhp @ 9750 RPM

সর্বোচ্চ টর্ক

14 NM @ 7500 RPM

স্টার্ট

Electric

গিয়ারের সংখ্যা

6

মাইলেজ

40 Kmpl (Approx)

টপ স্পিড

120 Kmph (Approx)

সামনের সাসপেনশন

Telescopic USD

পেছনের সাসপেনশন

Monoshock

সামনের ব্রেক টাইপ

Single Disc

ফ্রন্ট ব্রেক ডায়ামিটার

No Info

পেছনের ব্রেক টাইপ

Disc Brake

পেছনের ব্রেক ডায়ামিটার

No Info

ব্রেকিং সিস্টেম

Normal Braking System

সামনের টায়ারের সাইজ

100/80-17

পিছনের টায়ারের সাইজ

130/70-17

টায়ারের ধরন

Tubeless

সামগ্রিক দৈর্ঘ্য

2022 mm

উচ্চতা

1100 mm

ওজন

122 KG

হুইলবেস

1335 mm

সামগ্রিক প্রস্থ

820 mm

গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স

160 mm

জ্বালানী ট্যাঙ্কের ধারণ ক্ষমতা

12.7 Liters

আসন উচ্চতা

770 mm

হেড লাইট

Halogen

ইন্ডিকেটরস

Halogen

পেছনের লাইট

Halogen

স্পিডোমিটার

analog

আরপিএম মিটার

Digital

ওডোমিটার

Analog

আসনের ধরন

Single-Seat

ইঞ্জিন কিল সুইচ

yes

শরীরের রঙ

No Info

পরিবেশক/বিক্রেতা

Runner Automobiles Limited

Buy New Aprilia Cafe 150Bikroy

No bikes found. Browse used section or Explore other models.

Buy Used Aprilia Cafe 150Bikroy

No bikes found. Browse used section or Explore other models.

+ Post an ad on Bikroy